ভারতের বাড়ি থেকে উদ্ধার ১১ মৃতদেহের সাথে অতিন্দ্রীয়র সম্পর্ক!

ভারতের বাড়ি থেকে উদ্ধার ১১ মৃতদেহের সাথে অতিন্দ্রীয়র সম্পর্ক!

শেয়ার করুন

_102294135_gettyimages-988883260বিশ্বসংবাদ ডেস্ক :

ভারতের দিল্লির বুরারিতে একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার ১১ মৃতদেহ শেষকৃত্য সম্পন্ন  হয়েছে। সোমবার তাদের দাহ করা হয়।

ময়না তদন্তের প্রতিবেদনে একে প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যা বলা হলেও তদন্ত কর্মকর্তরা বলছেন এর পেছনে  অতীন্দ্রিয় বিশ্বাসের বিষয়টিও থাকতে পারে।  বাড়ি থেকে পাওয়া কিছু সুইসাইডাল নোট থেকে সেরকমই আভাস পাওয়া গেছে।  এরকম ধারণার কারণ একটি নোটে লেখা ছিল : মানবদেহ অস্থায়ী। চোখ ও মুখ ঢেকে রাখার মাধ্যমে একজন তার ভয়কে জয় করতে পারে।

তবে ময়না তদন্তে নিহতদের শরীরে কোনে  ধস্তাধস্তির কোন চিহ্ন ছিলো না  বরং ফাঁসিতে ঝুলেই তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা। রোববার বুরারির ওই বাড়ি থেকে দুইজন পুরুষ, ছয়জন নারী, একজন বৃদ্ধা ও দুইজন কিশোর বয়সীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তাদের মধ্যে ১০ জনকে বাড়ির আঙিনায় লোহার গ্রিলের সঙ্গে ফাঁসিতে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। মৃতদেহগুলোর মুখমণ্ডল চোখ ও মুখ চারদিক থেকে পেঁচিয়ে ব্যান্ডেজের মত মোড়ানো ছিল। কয়েকটি মৃতদেহের হাত-পাও বাঁধা ছিল। আর  ৭৭ বছর বয়সী নারায়ণ দেবীকে অন্য একটি ঘরে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

পুলিশ প্রাথমিকভাবে ওই বৃদ্ধাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করেছিল। পুলিশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন

প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে ফাঁসিতে ঝুলেই সকলের মৃত্যু হয়েছে।  রহস্যজনক এ মৃত্যুর ঘটনা পুরো ভারতকে নাড়িয়ে দিয়েছে। ওই বাড়ি থেকে পুলিশ দুটি খাতা উদ্ধার করেছে। খাতাগুলোয় হাতে লেখা একগুচ্ছ নোট পাওয়া গেছে। ওই নোটগুলোতে এমন কিছু ‘অতীন্দ্রিয়’ বিশ্বাসের কথা বলা আছে, যা থেকে এ ঘটনার উদ্দেশ্য সম্পর্কে একটি আভাস জোরালো হচ্ছে বলে মনে করছে পুলিশ। একটি নোটে লেখা ছিল, ‘মানবদেহ অস্থায়ী।