টিকা নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে

টিকা নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে

শেয়ার করুন

Serum Vac bd
ভারত থেকে করোনাভাইরাসের টিকা পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা কেটে যাচ্ছে। দেশটির সেরাম ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বর্তমানে তাদের টিকার মজুদ বেড়েছে। ভারত সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলে তারা টিকা রপ্তানি করতে প্রস্তুত রয়েছে। বাংলাদেশ সরকারও টিকা পেতে কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র জানিয়েছে, টিকা নিয়ে অনিশ্চয়তা আজ সোমবার অথবা আগামীকাল মঙ্গলবারের মধ্যে দূর হবে।

এদিকে প্রাণঘাতী করোনার প্রতিষেধক টিকার মজুদ ফুরিয়ে আসছে। বাংলাদেশের হাতে থাকা এক কোটি দুই লাখ ডোজ টিকার মধ্যে গতকাল পর্যন্ত ৭০ লাখ ৮০ হাজার ডোজ বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৭ লাখ ১৪ হাজার জন এবং ১৩ লাখ ৬৬ হাজার ডোজ দ্বিতীয় ডোজও নিয়েছেন। মজুদ ৩১ লাখ ১৯ হাজার টিকা দিয়ে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত চলতে পারে। এই সময়ের মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী টিকা না এলে অনিশ্চয়তায় পড়বে বাংলাদেশের চলমান টিকাদান কর্মসূচি।

স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র জানায়, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে বাংলাদেশকে জানানো হয়েছে, টিকা রপ্তানি করতে তারা এখন পুরোপুরি প্রস্তুত। কিন্তু ভারত সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে না নিলে তারা টিকা রপ্তানি করতে পারবে না। এর পরই কূটনৈতিক চ্যানেলে টিকা পেতে তৎপরতায় নামে সরকার। কূটনৈতিক চ্যানেলে আলোচনার পর বাংলাদেশ টিকা পাওয়া নিয়ে আশাবাদী হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশ আবার কবে নাগাদ টিকা পাবে কিংবা কত টিকা আসছে, সেসব বিষয় আজকালের মধ্যে স্পষ্ট হয়ে যাবে।

চুক্তি অনুযায়ী মার্চ পর্যন্তই আরও ৮০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের। জরুরি চাহিদা মেটানোর জন্য সেই টিকা পেতে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সেরাম ইনস্টিটিউটের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। ওই টিকা এলে প্রথম ডোজ নেওয়া সবাইকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া সম্ভব হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম জানান, মার্চ পর্যন্ত বকেয়া টিকা পেতে বেক্সিমকোর মাধ্যমে সেরামকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকেও টিকার জন্য ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। আশা করি, টিকা নিয়ে যে অনিশ্চয়তা চলছে দু-এক দিনের মধ্যেই তা দূর হবে।