জেনে শুনে বিষপান

জেনে শুনে বিষপান

শেয়ার করুন

কিশোয়ার অরনী: 

‘সিগারেট ইজ ইনজুরিয়াস টু হেলথ, সিগারেট স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর’। সিগারেট প্যাকেটে কিংবা বিজ্ঞাপনে ব্যবহৃত বাক্যগুলি যেন নেহাতই আইন-রক্ষার্থে লেখা৷

সিগারেট স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, সেটা প্রায় সকলেই জানি৷ তবুও আমরা লক্ষ করি, সিগারেট খাওয়ার হার ক্রমশই বেড়ে চলেছে৷ কিশোর, যুবক, মধ্যবয়স্করা তো রয়েছেনই, বয়স্করাও সিগারেটের নেশামুক্ত হতে পারছেন না৷ সেজন্য নানারকমের ব্যাধি তাদের গ্রাস করছে৷

গবেষণায় দেখা গেছে সিগারেটের ধূমপানে নিকোটিনসহ ৫৬টি বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ বিরাজমান। ২০১০ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে বিশ্বের ১৯২টি দেশে পরিচালিত একটি গবেষণা প্রতিবেদনে জানানো হয়, নিজে ধূমপান না করলেও অন্যের ধূমপানের (পরোক্ষ ধূমপান) প্রভাবে বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর প্রায় ৬,০০,০০০ মানুষ মারা যায়। এর মধ্যে ১,৬৫,০০০-ই হলো শিশু।

শিশুরা পরোক্ষ ধূমপানের কারণে নিউমোনিয়া ও অ্যাজমায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর দিকে ঝুঁকে পড়ে। এছাড়া পরোক্ষ ধূমপানের কারণে হৃদরোগ, ফুসফুসের ক্যান্সার সহ শ্বাস-প্রশ্বাস-জনিত রোগও দেখা দেয়। গবেষণায়ও এও বেরিয়ে এসেছে যে, পরোক্ষ ধূমপান পুরুষের তুলনায় নারীর উপর বেশি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

ধূমপান ক্যান্সারের কারণ।
ধূমপান ক্যান্সারের কারণ।

পরোক্ষ ধূমপানের কারণে বিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ৮১,০০০ নারী মৃত্যুবরণ করেন। এর আগে ২০০৪ খ্রিস্টাব্দে পরিচালিত এজাতীয় আরেকটি গবেষণায় দেখা গিয়েছিলো যে, পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হওয়া ব্যক্তিদের ৪০% শিশু, ৩৩% অধূমপায়ী পুরুষ এবং ৩৫% অধূমপায়ী নারী রয়েছেন। তাতে এও ফুটে ওঠে যে, পরোক্ষ ধূমপানের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির স্বীকার হচ্ছেন ইউরোপ ও এশিয়ার মানুষ।

ইদানীংকালে মেয়েদের ধূমপান করার ব্যপারটাও উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে৷ কেউবা হালফিলের স্ট্রেসফুল লাইফ থেকে সাময়িক মুক্তি পেতে সিগারেটকে বেছে নিচ্ছেন৷ হয়তো ক্ষণিকের তৃপ্তি বা স্বস্তি তাঁরা পেয়ে থাকেন, কিন্তু একই সঙ্গে তারা ধীরে ধীরে সিগারেটে আসক্ত হয়ে পড়েন৷ এবং এই নেশা কাটিয়ে বেরিয়ে আসা দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে৷ নিজেদের অজান্তেই শরীরে ঢুকিয়ে নেন নানা উপসর্গের বীজ৷

যা ভবিষ্যতে জীবনহানিকর হয়ে উঠে৷ সিগারেট খাওয়া ক্ষতিকর জেনেও যেমন সেই নেশায় জড়িয়ে পড়েন, তেমনি অনেকে মনে প্রাণে এই নেশা থেকে মুক্তি পেতে চান৷ কিন্তু বাস্তবে তা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সফল হয় না৷ অনেক ধূমপায়ী চিরতরে ধূমপান ছেড়েছেন, এমন নমুনা নেহাত কম নয়৷ অপর দিকে ধূমপান ছাড়ার পর আবার পুরনো নেশায় আকৃষ্ট হয়েছেন, সে সংখ্যাও কম নয়৷

দীর্ঘদিন ধরেই লক্ষ্য করা গেছে, ধূমপান পাকাপাকিভাবে ছাড়তে পারার সংখ্যাটা খুবই কম৷ রোগাক্রান্ত হয়ে অনেকেই সিগারেট দূরে সরিয়ে রেখেছেন৷ আবার সুস্থ হয়ে উঠার কিছু দিন পরই ফিরে গেছেন পুরনো নেশায়৷ ধুমপান যতই আনন্দ, তৃপ্তি দিক না কেন, এর ক্ষতির পরিমানটা বেশি৷