অপহৃত হওয়ার ৩০ বছর পর ছবি এঁকে মাকে পেলেন চীনের যুবক

অপহৃত হওয়ার ৩০ বছর পর ছবি এঁকে মাকে পেলেন চীনের যুবক

শেয়ার করুন

China

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

১৯৮৮ সালে মাত্র চার বছর বয়সে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইয়ুনান প্রদেশে নিজের গ্রাম থেকে অপহরণের শিকার হয়েছিলেন চীনা নাগরিক লি জিংওয়ে। অপহরণকারী ব্যক্তি ছিলেন লির পরিবারের পূর্বপরিচিত। তিসি নামের ওই ব্যক্তি অন্য এক পরিবারের কাছে লিকে হস্তান্তর করেন। তখন থেকেই হেনান প্রদেশের মধ্যাঞ্চলীয় একটি এলাকায় সেই পরিবারের সঙ্গে থাকতে শুরু করেন লি।

তবে তাঁর মন পড়ে থাকত ফেলে আসা নিজের গ্রামে। সেখানকার স্মৃতি হাতড়ে ৩০ বছরের বেশি সময় পার হয়ে যায়। অবশেষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, অনলাইন প্রচার এবং নিজের স্মৃতি থেকে আঁকা খসড়া মানচিত্রের বদৌলতে সম্প্রতি নিজের মা-বাবার সঙ্গে দেখা হয়েছে লির। চীনা একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে লির সেই অভিজ্ঞতার বর্ণনা ছাপিয়েছে মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন।

বয়সে ছোট থাকলেও অপহরণের সময় লি বুঝতে পেরেছিলেন তাকে পরিবার থেকে অনেক দূরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বড় হওয়ার পরও নিজ গ্রামে ফেরার কোনো উপায় ছিল না তার। কারণ, জন্মের সময় দেওয়া নাম, নিজের মা-বাবার নাম, গ্রামের নাম—কিছুই মনে করতে পারছিলেন না তিনি।

তবে গ্রামের বাড়ি দেখতে কেমন ছিল, তা মনে করতে পারতেন তিনি। সেখানে গাছপালা ছিল, গরু চরত, আঁকাবাঁকা রাস্তা ছিল, বহমান নদী ছিল। তার মনে আছে, বাড়ির পাশে ধানখেত ও পুকুর ছিল। পাশের পাহাড়েই জন্মাত বাঁশকোরল। ছোটবেলায় যখনই নিজের বাড়ির কথা মনে পড়ত, তখনই তিনি তার গ্রামের ছবি আঁকতেন। দিনে অন্তত একবার হলেও ছবি আঁকতেন তিনি।

কীভাবে লি তার পরিবারকে খুজে পেলেন তার বর্ণনায় দ্যা গার্ডিয়ান জানায়, চীনা ভিডিও প্ল্যাটফর্ম দয়িনে লির বক্তব্যের একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়। সেখানে লি বলেন, ‘অনেক বছর কেটে গেছে। আমি জানি না পরিবারের কেউ আমাকে খুঁজছে কি না।’ ওই ভিডিওতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হওয়ার প্রবল ইচ্ছার কথা ব্যক্ত করেন লি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার আঁকা ছবি ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়। পরে তা জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। শৈশবে অপহৃত হওয়া মানুষকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে এ মন্ত্রণালয় তদন্তের কাজ শুরু করে। দ্রুতই কর্তৃপক্ষ ইয়ুনান প্রদেশের ঝাওতংয়ে লির সম্ভাব্য জন্মদাত্রী মাকে চিহ্নিত করে। তাদের সম্পর্ক নিশ্চিত হতে দুজনের ডিএনএ নমুনাও সংগ্রহ করা হয়। গত ২৮ ডিসেম্বর প্রাপ্ত ফলাফলে দেখা যায় তাদের ডিএনএ মিলে গেছে।