‘মুষ্টিমেয় কিছু বিপথগামীর জন্য মুসলমানরা অপমানিত হচ্ছি’

‘মুষ্টিমেয় কিছু বিপথগামীর জন্য মুসলমানরা অপমানিত হচ্ছি’

শেয়ার করুন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সেমিনার

রাবি সংবাদদাতা:

‘মুষ্টিমেয় কিছু বিপথগামীর কারণে আমরা মুসলমানরা আজ অপমানিত হচ্ছি। ধর্মকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে করে তারা নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে।  গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলা চালিয়েছে তারা। এমনকি শিশু ও গর্ভবতী নারীকেও  ছাড়ে নি তারা। এরা যে বিধর্মী কাফের, তা আজ সুস্পষ্ট। ’

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন।

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের আহ্বানে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অংশ হিসেবে শনিবার বেলা ১২টায় কেন্দ্রীয় কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে এ  আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় উপাচার্য বলেন, ‘ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। ইসলাম কখনোই জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না। ইসলাম সম্পর্কে একটি ভুল ধারণা সৃষ্টি করা হয়েছে। এটা দূর করতে হবে। এর অপব্যাখ্যা করা হচ্ছে। এটা হতে পারে না। ’

এসময় তিনি অধ্যাপক রেজাউল করিম হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে বলেন, ‘রেজাউলকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছে। তার হত্যাকাণ্ডের পর আমরা স্তম্ভিত হয়েছিলাম। আমরা আমাদের সবার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত ছিলাম। এসময় আমরা তীব্র আন্দোলনের সূচনা করেছিলাম যে আন্দোলন অন্যান্য সকল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে জনসাধারণের কাছে তরঙ্গায়িত হয়েছে। যারা ধর্মের মোড়কে বিশ্ববিদ্যালয়কে  ঢেকে দিতে চায় তাদের চিহ্নিত করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, গুলশান ও শোলাকিয়ার হামলার পর সকল মানুষ বিশেষ করে মুসলমান সম্প্রদায় এসব সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। যার পরিপ্রেক্ষিতে সারাদেশের মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। সারাদেশের মানুষ জঙ্গিদের বিরুদ্ধে এগিয়ে এসেছে।’
শিক্ষক ও অভিভাবকদের উদ্দেশে বলেন, ‘সন্তানদের প্রতি আমরা যথাযথ দায়িত্ব পালন করছি কী? শিক্ষকরা তাদের দায়িত্ব পালনে অবহেলা করছি নাতো? তরুণরা যেন জঙ্গি কর্মকান্ডে জড়িয়ে না পড়ে এজন্য শিক্ষক অভিভাবকদের সতর্ক থাকতে হবে।’

সভায় উপ-উপাচার্য বলেন, ‘বহু বাধা পেরিয়ে বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। ঠিক সেই সময় এই অগ্রগতিকে রুখে দিতে একটি কুচক্রী মহল জঙ্গিবাদের সৃষ্টি করেছে। শিক্ষক অভিভাবকদের আহ্বান জানাচ্ছি যার যার স্থান থেকে সচেতন থাকতে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মানুষকে অন্যায়ভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন বা হত্যা করলে সে জান্নাতে স্থান পাবে না। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস এমন একটি সংকট যা সমাজকে কলুষিত করে, মানবিক ও সামাজিক মূল্যবোধের কাঠামোকে ধ্বংস করে বিশ্ব শান্তকে বিনষ্ট করে। জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সাথে পাল্লা দিয়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের ধরণ ও প্রযুক্তিগত পরিবর্তন হয়েছে। একে প্রতিরোধের জন্য প্রয়োজন সামাজিক  সচেতনতা ও  দেশপ্রেম ।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. মিজানুর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সায়েন উদ্দিন আহমেদ। এছাড়া ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মুহা. বারকুল্লাহ বিন-দুর ইসলামের দৃষ্টিতে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রসঙ্গে আলোচনা করেন। এতে  বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অংশ নেয়।

এদিকে একই কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার দুপুরে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) সমাবেশের আয়োজন করা হয়।