জৌলুস হারাচ্ছে ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ

জৌলুস হারাচ্ছে ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ

শেয়ার করুন

ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

আবাসন সমস্যা, শ্রেণিকক্ষ, শিক্ষক ও পরিবহন সংকটের কারণে ১১৭ বছরের পুরনো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। কলেজের ২৮ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র এক হাজার ৩০০ জনের আবাসন সুবিধা রয়েছে।

উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্রীদের কোনো আবাসনব্যবস্থা নেই। তার ওপর উচ্চমাধ্যমিক ও ডিগ্রি শাখা দুটি আলাদা ক্যাম্পাসে হওয়ায় শিক্ষকদের ক্লাস নিতে অসুবিধা হচ্ছে। নানা সমস্যায় জর্জরিত কলেজটি ধীরে ধীরে যেমন তার ঐতিহ্য হারাচ্ছে।

কলেজের পাঁচটি আবাসিক হল থাকলেও অধিকাংশ হল জরাজীর্ণ হয়ে আছে। এর মধ্যে দুটি হল একেবারেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ায় বন্ধ রয়েছে।

জানা যায়, ১৮৯৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর তৎকালীন জমিদার রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায় কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠালগ্নে কলেজটির উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠদানের মধ্য দিয়ে ১০৭ জন ছাত্র এবং সাতজন শিক্ষক নিয়ে যাত্রা শুরু করে।

১৯১৮ সালে চালু হয় স্নাতক (সম্মান) কোর্স। বিএসসি এবং বিকম কোর্স শুরু হয় পর্যায়ক্রমে ১৯৪২ এবং ১৯৫৬ সালে। নৈশকালীন পাঠদান কর্মসূচি চালু হয় ১৯৫৮ সালে। ১৯৬২ সালে কলেজের উচ্চমাধ্যমিক ও ডিগ্রি শাখায় বিভক্ত হয়।

১৯৭১ সালে পাঁচটি বিভাগ চালু করা হয়। বাংলা বিভাগ চালু হয় ১৯৭৩ সালে। ১৯৮৪-১৯৮৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের মর্যাদা লাভ করে। স্নাতক এবং উচ্চমাধ্যমিক শাখা ২৯ একর ভূমির ওপর প্রতিষ্ঠিত।

বর্তমানে কলেজের ২৭ হাজার ৪১৮ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। কলেজে কর্মরত আছে ১৬৫ জন শিক্ষক। কলেজে ২১টি বিষয়ে স্নাতক (সম্মান) এবং ১৯টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর কোর্স চালু রয়েছে।

শিক্ষা ও আবাসন সমস্যা প্রকট: কলেজের ডিগ্রি শাখায় দুটি ছাত্রাবাস রয়েছে। ছাত্রদের জন্য কবি নজরুল ইসলাম হল। যেখানে আসন সংখ্যা ৬৩৫। ছাত্রীদের জন্য নবাব ফয়জুন্নেসা হল। যার আসন সংখ্যা ৪০০। এসব ছাত্রাবাসের প্রতিটিতেই ছাদ চুইয়ে পানি পড়ে। সংস্কার নেই দীর্ঘদিন। দেয়ালের চুন, আস্তর খসে খসে পড়ছে।

উচ্চমাধ্যমিক শাখার জন্য টমছম ব্রিজ এলাকায় নিউ হোস্টেলের সোহরাওয়ার্দী ও রবীন্দ্রনাথ হলের চারটি ভবনের মধ্যে একতলা বিশিষ্ট তিনটি ভবনই জরাজীর্ণ ও পরিত্যক্ত।

পাশের চারতলা বিশিষ্ট একটি ভবনে গাদাগাদি করে প্রায় ৩০০ ছাত্র রয়েছে। নগরীর দক্ষিণ চর্থায় কলেজের শেরেবাংলা ছাত্রী নিবাসটি দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ ধরে বন্ধ। ফলে দুর্ভোগের শেষ নেই ছাত্রীদের।

খায়রুল আহসান মানিক