ভয়াল নাইন-ইলেভেনের ১৭ তম বার্ষিকী

ভয়াল নাইন-ইলেভেনের ১৭ তম বার্ষিকী

শেয়ার করুন

US-attacks-1বিশ্বসংবাদ ডেস্ক :

আজ সেই ভয়াল নাইন-ইলেভেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী হামলার ১৭তম বার্ষিকী। ২০০১ সালের এই দিনে সন্ত্রাসীরা চারটি বিমান ছিনতাই করে একযোগে নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ার ও পেন্টাগনে হামলা চালায়। এ ঘটনায় তিন হাজার মানুষের প্রাণহাণি হয়। আহত হয় অন্তত ছয় মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রে এটি একটি জাতীয় শোকাবহ ঘটনা ।

২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর মিষ্টি আবহাওয়া। ব্যস্ত নিউ ইয়র্ক শহরের সব ভবনেই কাজ শুরু করেছে কর্মী মানুষ।  ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারও তখন কর্মঞ্চল। এমন দিনে প্রাণঘাতি হামলা ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের   উত্তর ও দক্ষিণ টাওয়ারে। আকষ্মিকভাবে আঘাত হানে দুটি বিমান। আর তাতে ধ্বসে পড়ে সুউচ্চ ভবন দুটি।

এ হামলায় নিহত হয়েছিলেন অন্তত তিন হাজার মানুষ। আহতের সংখ্যা কম করে ৬ হাজার।

ট্রেড সেন্টার যখন জ্বলছে, তখন আর একটি বিমান নিয়ে, মার্কিন প্রতিরক্ষা সদরদপ্তর-পেন্টাগনে হামলা চালায় জঙ্গিরা। এ হামলায় ভবনের পশ্চিম পাশের কিছু অংশ ধসে পড়ে।  চতুর্থ বিমানটির লক্ষ্য ছিল ওয়াশিংটনে হামলার। যাত্রীদের প্রতিরোধে বিমানটি পেনসিলভানিয়ার শাঙ্কসভিলে বিধ্বস্ত হয়।

হামলার ১৭ বছর পরেও ভয়াবহ সেই স্মৃতি তাড়া করে অনেক মানুষকে। সেদিন যারা টুইন টা্ওয়ার থেকে বেঁছে ফিরেছনে, তাদের কেউ ক্যান্সারের ঝুঁকিতে আছেন, কেউ ভুগছেন মানসিক সমস্যায়।

নাইন-ইলেভেন হামলা  যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের নিরাপত্তা বোধে আঘাত হানে। সুদুর প্রসারি প্রভাব ফেলে বিশ্বরাজনীতিতে। পশ্চিমাদের সঙ্গে মুসলিম বিশ্বের সম্পর্কের নতুন মেরকরণ ঘটে। বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস-বিরোধী লড়াইয়ে জিড়য়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা।

এই হামলার জন্য দায়ি জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদা।  প্রধান ওসামা বিন লাদেন, আর সন্দেহভাজন ১৯ জনের ১৫ জন সৌদি নাগরিক।  ২০০১ সালে আফগানিস্তানের হামলা চালায় মার্কিন বাহিনী। এরপর ২০০৩ সালে হামলা চালায় ইরাকে। এতে বহু মানুষ নিহত হয়েছে। সেই যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি। অন্যদিকে ২০১১ সালে ওসামা বিন লাদেনক হত্যা করে মার্কিন বাহিনী।