লকডাউন হওয়া এলাকায় সাধারণ ছুটি থাকবে

লকডাউন হওয়া এলাকায় সাধারণ ছুটি থাকবে

শেয়ার করুন

 

lockdown_bangladesh

করোনা ভাইরাসে অধিক সংক্রমিত এলাকায় বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেইসব এলাকার সব অফিস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সরকার। ফলে অধিক সংক্রমণের কারণে লকডাউন হওয়া এলাকাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে।
সংক্রমণের দিক থেকে অধিক, তার থেকে কম এবং নিরাপদ এলাকাকে রেড, ইয়োলো এবং গ্রিন জোনে ভাগ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তথা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরামর্শে নানাবিধ পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

এরইমধ্যে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারকে অধিক সংক্রমিত হিসাবে ‘রেড জোন’ চিহ্নিত করে লকডাউন করা হয়েছে। এই এলাকায় মানুষের চলাচলে কঠোর হয়েছে প্রশাসন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের পর এলাকাভিত্তিক লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এর আগে ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে অফিস খুলে বয়স্ক, গর্ভবতী এবং অসুস্থদের অফিসে না আসার পাশাপাশি অধিক সংক্রমিত এলাকা থেকে অফিস না করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শুক্রবার (১২ জুন) সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভায় লকডাউন হওয়া এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সভা সূত্রে জানা গেছে। সভায় কয়েকজন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী, মেয়র, মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে উপস্থিত জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, চাকরিজীবীদের দুশ্চিন্তামুক্ত রাখতেই লকডাউন করা এলাকায় সাধারণ ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বৈঠকে অংশ নেওয়াদের একজন গণমাধ্যমকে বলেন, সংক্রমণ বেশি থাকা আরও বিভিন্ন এলাকায় শিগগির লকডাউন হবে। তবে ওই সব এলাকার নাম বেশি আগে ঘোষণা দেওয়া হবে না। আগ মুহুর্তে নাম ঘোষণা করা হবে। কারণ বেশি আগে ঘোষণা করলে ওই এলাকার অনেক মানুষ এমনকি আক্রান্ত ব্যক্তিরাও অন্যত্র চলে যেতে পারে, যা ঝুঁকি বাড়বে। আর যেহেতু এখন লকডাউন এলাকায় বাজার-সদাইসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা রাখা হচ্ছে, ফলে আগ মুহুর্তে ঘোষণা করলেও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

এ ছাড়া শক্ত ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে একটি এলাকার কেবল বেশি সংক্রমিত অংশকেই লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই কনফারেন্সে অংশ নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ , জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউসসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।