আজও বিক্ষোভ করছেন সৌদি প্রবাসীরা

আজও বিক্ষোভ করছেন সৌদি প্রবাসীরা

শেয়ার করুন

 

Soud experties

কর্মস্থলে ফিরতে বিমানের টিকিট না পাওয়ায় আজও বিক্ষোভ করছেন সৌদি প্রবাসীরা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সৌদি আরবে যেতে না পারলে চাকরি হারানোর শঙ্কায় রয়েছেন তারা। আবার অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ দিকে থাকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালেও তারা বিক্ষোভ শুরু করেছেন। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিক্ষোভ থেকে ঘোষণা আসে, তারা প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং জনকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে দাবি-দাওয়া নিয়ে যাবেন। ঘোষণা আসার সাথে সাথে সাড়ে ৯টার দিকে তারা কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ ধরে মন্ত্রণালয়গুলোর উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন। টিকিটের দাবিতে তারা নানা স্লোগান দেন।
তারা বলছেন, ১ অক্টোবরের মধ্যে আমরা যদি সৌদিতে ফিরতে না পারি; তবে আমাদের আকামা বাতিল হয়ে যাবে।

বিক্ষোভে অংশ নিতে কুমিল্লা থেকে আগত আলমাস হোসেন বলেন, সরকারের জরুরি পদক্ষেপ না নিলে আমরা সৌদিতে ঢুকতে পারবো না। আমাদের পরিবার বিপদে পড়ে যাবে। আমরা বেকার হয়ে পড়ব।

এভাবে ৬৪ জেলা থেকে কয়েক হাজার লোক এসে সেখানে অবস্থান নিয়েছেন। কুষ্টিয়ার কবির হোসেন বলেন, আমাদের আকামা ও ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে সৌদি সরকার ঢুকতে দেবে না। আমরা কোম্পানির সঙ্গে কথা বলেছি। আমাদের বলা হয়েছে, তোমরা যথাসময়ে সৌদিতে না আসলে আমাদের করার কিছু নেই।

সরকার যেন জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নিয়ে যাদের আকামা নেই, তাদের টিকিটের ব্যবস্থা করেন, প্রবাসীরা বিক্ষোভে সেই দাবিই জানিয়ে আসছেন।

প্রবাসীরা বলেন, বিভিন্ন মেয়াদে তাদের সবার রিটার্ন টিকিট কেনা আছে। এ সময়ের মধ্যে তারা যদি সৌদিতে ফিরতে না যেতে পারেন, তাহলে যেন তিনমাসের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সৌদি সরকারের কাছে সেই আবেদন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

তেল সমৃদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরবে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া প্রবাসী শ্রমিকদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। গত বছর, বিভিন্ন দেশ থাকা বাংলাদেশি অভিবাসীরা ১৮.৩৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার দেশে পাঠিয়েছেন। এর মধ্যে শুধুমাত্র সৌদি থেকেই এসেছে ৩.৬৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (১৯ দশমিক ৮৭%)।

এদিকে করোনার কারণে ৬ মাস বন্ধ থাকার পর প্রথম একটি ফ্লাইট গত রাতে ঢাকা ছেড়েছে। সৌদি সময় মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ৩টা ২০ মিনিটে বিমানবন্দরে অবতরণ করে ফ্লাইটটি।