বড় দুই দলের সামনে নির্বাচনের বিকল্প নেই

বড় দুই দলের সামনে নির্বাচনের বিকল্প নেই

শেয়ার করুন

AL-BNPনিজস্ব প্রতিবেদক :

বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী রেখে কোন দিকে মোড় নেবে দেশের রাজনীতি? রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, রাজনীতিতে যতই উত্তাপ ছড়াক, বড় দুই দলের সামনেই নির্বাচনের কোন বিকল্প নেই। আবার বেগম জিয়া খুব বেশি দিন কারাবন্দী থাকবেন না, এই প্রত্যাশাও রয়েছে অনেকের।

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবন্দী হওয়া কারও কাছে রাজনীতির মার-প্যাচ, কারো কাছে দুর্নীতির সাজা। তবে ইতিহাস বলছে, আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা কিংবা বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে, এই দেশে কোনো সংসদ নির্বাচন হয়নি। এবারের অবস্থা অনেকটাই ভিন্ন। বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনে না যাওয়ার মতো ভুল আরও করতে চাইবে না বিএনপি। দলীয় প্রধানের কারাবরণের পরেও অতীতের মতো সংঘাতময় আন্দোলনে না যাওয়া তারই একটি ইঙ্গিত বলে মনে করেন  রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক  ড. হারুন অর রশিদ।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান গত ২৮ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশনকে আনুষ্ঠানিক ভাবে জানিয়ে এসেছেন, চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি। এর আগে গত ৯ জানুয়ারি বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে প্রায় একই ধরনের আলোচনা হয় শরিকদলের মাঝে।

৫ বছরের কারাদণ্ডের পর বেগম জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেয়াটা এখন অনেকটাই আদালত নির্ভর। এসব বিবেচনায় নিয়েই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নির্বাচনের আগে জনগণের সহানুভূতি ঝুঁকবে বিএনপির দিকেই।

খালেদা জিয়ার রায়ের দিন গত বৃহস্পতিবার, সারাদেশে তেমন কোন সহিংসতা না ঘটা দেশের রাজনীতির জন্য সুবাতাস বলেই ধরে নিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।