জালানি খাতের অনিয়মের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে জনগণের ঘাড়ে

জালানি খাতের অনিয়মের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে জনগণের ঘাড়ে

শেয়ার করুন

358483570fd2f769bdc8bfa216128357নিজস্ব প্রতিবেদক :

কারিগরি ত্রুটি কারণে এখনও সরবরাহ শুরু হয়নি আমদানী করা তরল প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি-র। তবে এই এলএনজির ওপর ভিত্তি করেই  গ্যাসের দাম বাড়ানোর পক্ষে মত বিভিন্ন বিতরণ কোম্পানির। আর এ নিয়েই উঠেছে প্রশ্ন।

চলমান গ্যাস সংকট মেটাতে আমদানি করা এলএনজির প্রথম চালান দেশে আসে প্রায় দু-মাস আগে। এলএনজি নিয়ে কার্গো জাহাজ ‘এক্সিসিলেন্স’ নোঙর করে আছে মহেশখালির গভীর সমুদ্রে। কিন্তু কারিগরি ত্রুটির কারণে গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছাতে সময় লাগবে জুলাই পর্যন্ত।

তবে, আমদানী করা এলএনজির দাম মাথায় রেখেই গ্যাসের দাম নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে চলেছে গণশুনানি। সরকার জ্বালানি ঘাটতি মেটাতে বেশি দামের এলএনজি আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ কারণ দেখিয়ে সব রকম গ্যাসের দাম ১০০-২০০% বাড়ানোর প্রস্তাব দিচ্ছে বিতরণ কোম্পানিগুলো। ভোক্তা পর্যায়ে গড়ে ৭৫ শতাংশ গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে বিতরণ কোম্পানীগুলো। আর বিদ্যুৎ খাতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ২০৬ শতাংশ।

কোম্পানিগুলো এক হাজার মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি আমদানির হিসেব ধরে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। কিন্তু কমিশন মনে করছে, আগামী বছর জুন পর্যন্ত প্রতিদিন গড়ে ৪৫৬ মিলিয়ন ঘনফুটের বেশি এলএনজি সরবরাহ হবে না। এ অবস্থায় গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে গ্রাহক পর্যায়ে।

নতুন গ্যাস ক্ষেত্র আবিষ্কার না হলে ১০ বিলিয়ন ঘনমিটার ঘাটতি গ্যাসের চাহিদার পুরোটাই মেটাতে হবে আমদানি করা তরল গ্যাসের মাধ্যমে।