আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি কারা?

আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি কারা?

শেয়ার করুন

1c773ba203344e8aaa2b7919d7a53ca0_18নিজস্ব প্রতিবেদক :

আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি-আরসা। এরা কারা?

আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি। রাখাইনে ‘হারকাতুল ইয়াকিন’ নামে পরিচিত। ২০১৬ সালের অক্টোবরে হঠাৎ উত্থান। ২৫ আগস্ট সীমান্ত এলাকা মংডু ও রাথেডংয়ের পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা করে নিরাপত্তা বাহিনীর ৯ সদস্যকে হত্যার অভিযোগ ওঠে তাদের বিরুদ্ধে। আর এরই সুযোগ নিয়ে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের নামে রোহিঙ্গা নিধন শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী।

ওই ঘটনার পর রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মিকে সন্ত্রাসী সংগঠণ ঘোষণা করে মিয়ানমার সরকার। অক্টোবরে আরসা একটি ভিডিও প্রকাশ করে, যেখানে দলটির নেতা আতাউল্লাহ আবু ওমর জুনুনি বলেন, ‌৭৫ বছর ধরে রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর চলা আর্মির অত্যাচার বন্ধ না হলে, নিজেদের রক্ষায় সবকিছু করবেন তারা।

২০১২ সালে আতাউল্লাহ সৌদি আরব থেকে অদৃশ্য হয়ে যান। এরপর সম্প্রতি রাখাইনে নতুন করে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর তার নাম উঠে আসে। মিয়ানমার সরকার জানায়, আতাউল্লাহর জন্ম পাকিস্তানের করাচিতে। বেড়ে উঠেছেন সৌদি আরবে।

সরকারী তথ্যানুযায়ী, আরসার নেতৃত্বে রয়েছে বিদেশে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত রোহিঙ্গা জিহাদীরা। তবে সংগঠনটি কতো বড়, তাদের নেটওয়ার্ক কতোটা বিস্তৃত, সে সম্পর্কে পরিস্কার ধারণা নেই। আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির দাবি, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের নাগরিকত্ব এবং সমান মর্যাদা নিশ্চিত করা। তবে কফি আনানের ইতিবাচক রিপোর্ট প্রকাশের পরপরই তাদের হামলা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জন্য কতোটা কল্যাণকর হয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।