আরাকানে ফেরা নিয়ে সংশয়ে রোহিঙ্গারা

আরাকানে ফেরা নিয়ে সংশয়ে রোহিঙ্গারা

শেয়ার করুন

রোহিঙ্গানিজস্ব প্রতিবেদক :

আরাকানে ফেরা নিয়ে সংশয়ে দিন কাটছে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা মুসলিমদের। নৃশংস হত্যাকান্ডের সাক্ষী অনেকেই আর ফিরতে চায় না। যদি পূর্ণ নাগরিকত্ব দিয়ে রোহিঙ্গাদের রাইট কার্ড দেওয়া হয় তবেই মিয়ানমারে ফিরে যেতে চান তারা।

টেকনাফ থেকে উখিয়া। সমুদ্রপাড়ের এই শহর এখন এক মানবিক বিপর্যয়ের শহর।পাহাড় জুড়ে এখন আর সবুজের ডানামেলা সৌন্দর্য নেই,সব জায়গায় রোহিঙ্গাদের বসবাস। দিনকে দিন মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সংখ্যা এখন শুধু বাড়ছেই।

টেকনাফ-বান্দরবানের ৩৯টি পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে মানবিক কারণে আশ্রয় পাওয়া রোহিঙ্গাদের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৭ লাখের কাছাকাছি। গত এক মাস ধরে শুরুতে যে ত্রাণের প্রবাহ ছিল তা অনেকটাই কমে এসেছে।জীবিকার তাগিদে অনেকেই দৈনিক মজুরীতে যাই পাচ্ছেন, কাজ  করছেন।

রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব দিয়ে দেশে পাঠাতে কূটনৈতিকভাবে সর্বোচ্চ তৎপরতা চালাচ্ছে বাংলাদেশ।তবে মিয়ানমারের তৎপরতাটা অনেকটা অস্পষ্ট।একদিকে যাচাই বাছাই করে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার কথা বললেও আবার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে বলছে রাখাইনের রোহিঙ্গারা সন্ত্রাসী আক্রমণে জড়িত।অথচ কথিত উগ্রবাদী সংগঠন আরসা সম্পর্কে জানেই না সাধারণ রোহিঙ্গারা।

রাখাইনে নৃশংস বর্বরতার স্বাক্ষী হওয়া মানুষগুলো এ যাত্রায় তাদের ফেরা নিয়ে সন্দিহান। তবে পূর্ণ নাগরিকত্ব দিয়ে ‘রাইট কার্ড’ দেওয়া হলে মিয়ানমারে যেতে চায় রোহিঙ্গারা।

সবকিছু মিলিয়ে বলা যায় বর্তমানে রোহিঙ্গাদের ঢল সামলানো ও তাদের ফিরিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া হতে পারে বাংলাদেশের জন্য দীর্ঘতম সংকট।