সাত কলেজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত বিকেলে

সাত কলেজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত বিকেলে

শেয়ার করুন

Seven college demostration
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও দাবি দাওয়ার বিষয়ে আজ বুধরার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ৬টায় এক জরুরি সভার আহ্বান করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান এবং প্রো-ভিসিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের সমন্বয়কসহ সাত কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দ এ ভার্চুয়াল সভায় যুক্ত থাকবেন।

এদিকে, হঠাৎ করে চলমান পরীক্ষা বন্ধের প্রতিবাদ ও তা পুনরায় চালুর দাবিতে ঢাকার সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নেমেছে। শিক্ষার্থীরা রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করছে। ফলে ওই এলাকা উত্তাল হয়ে উঠেছে। আশেপাশের সড়ক ছাড়িয়ে যানজট ছড়িয়ে পড়েছে পুরো রাজধানীতে।

ট্রাফিক পুলিশ বলছে, বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর রাস্তার অবস্থা বেগতিক। সব থমকে আছে। নীলক্ষেত মোড় সকাল থেকেই বন্ধ। ওই সড়কের সকল গাড়ির চাপ অন্য সড়কে এসে পড়েছে। এছাড়া ওই রুটে চলাচলকারী বাসগুলো থমকে আছে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নিয়েছিল সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। ইডেন কলেজের শিক্ষার্থীরা রাস্তায় অবস্থান করে। রাত ১২টার দিকে তারা রাস্তা ছেড়ে দিলেও বুধবার সকাল ৯টা থেকেই অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। শিক্ষার্থীদের দাবি, চলমান পরীক্ষা হঠাৎ বন্ধ করে দেওয়ায় আমরা বিপাকে পড়েছি। কারো একটা-দুইটা পরীক্ষা হলেই শেষ হতো। এটা বন্ধ হওয়ায় কমপক্ষে আরও ছয়মাস অপেক্ষা করতে হবে। যা শিক্ষার্থীদের অনেক ধরনের সমস্যায় ফেলবে।

গতকাল রাত থেকে সড়ক আটকে আন্দোলন শুরু করলেও পুলিশকে একেবারই নীরব ভূমিকা পালন করতে দেখা গেছে। দূরে অবস্থান করছে পুলিশ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রমনা বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান বলেন, পুলিশ দেখলেই হইহই করে ওঠে, এজন্য একটু দূরে অবস্থান করছে পুলিশ। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন এখানে। উঠিয়ে দিতে গেলে সমস্যা আরও বাড়তে পারে। অন্যদিকে সড়কের অবস্থাও ভালো নয়। তবে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা চলছে। তাদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত একটা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।