গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব আসছে শিগগরই

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব আসছে শিগগরই

শেয়ার করুন

Gas

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ডিজেল-কেরোসিনের পর এবার দাম বাড়ছে প্রাকৃতিক গ্যাসের। তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাসে (এলএনজি) ভর্তুকির চাপ কমাতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর কথা ভাবছে সরকার।

এ নিয়ে বিতরণকারী কম্পানিগুলো এরই মধ্যে নানামুখী তৎপরতা শুরু করেছে। এরই মধ্যে দুটি কম্পানি বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে দাম বাড়ানোর প্রস্তাব জমা দিয়েছে।

জানা গেছে, আবাসিক, বাণিজ্যিকসহ সব ধরনের গ্যাসের দাম বাড়ানোর চূড়ান্ত প্রস্তাব এ সপ্তাহে জমা দিতে পারে গ্যাস বিতরণ কম্পানিগুলো। বিইআরসি বলছে, গত সপ্তাহে দু-একটি গ্যাস বিতরণ কম্পানি দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। তবে তা বিধিসম্মত না হওয়ায় ফেরত পাঠানো হয়।

তবে গ্যাস বিতরণকারী কম্পানিগুলো কতটুকু দাম বাড়াতে চায় তার ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে বিইআরসির একজন কর্মকর্তা বলেন, প্রস্তাব এলে প্রথমে তা কমিশনের বৈঠকে উত্থাপন করা হয়। এরপর নিয়ম অনুযায়ী গণশুনানি করে বর্ধিত দাম ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে বিতরণ এবং সঞ্চালন কম্পানির মার্জিন বৃদ্ধি করা হয়।

গত ২২ ডিসেম্বর অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ‘বাজেট মনিটরিং ও সম্পদ কমিটির’ বৈঠকে অর্থ বিভাগ থেকে দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়। ওই সভায় বলা হয়, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের দাম সমন্বয় বা বাড়ানো না হলে বাজেটে ভর্তুকি ব্যয় জিডিপির ২ শতাংশ বেড়ে যাবে। এরপর বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) থেকে নির্দেশনা পেয়ে গ্যাস বিতরণ কম্পানিগুলো প্রস্তাব তৈরির কাজ শুরু করে।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে এলএনজির দাম বাড়ায় চলতি বছর সার, বিদ্যুৎ এবং গ্যাসে ৭০ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি লাগবে। কিন্তু বাজেটে মাত্র সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি রাখা হয়েছে। ফলে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকির সংস্থানে দাম বাড়ানো ছাড়া উপায় নেই।