আজ ১০ আগষ্ট শিল্পী সুলতানের ৯৭তম জন্মবার্ষিকী

আজ ১০ আগষ্ট শিল্পী সুলতানের ৯৭তম জন্মবার্ষিকী

শেয়ার করুন
Sultan Photo-01
বরেণ্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতান

।। কার্ত্তিক দাস, নড়াইল ।।
আজ ১০ আগষ্ট। বরেণ্য চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের ৯৭তম জন্মবার্ষিকী। দিবসটি পালনে সুলতান কমপ্লেক্স চত্বরে শিল্পীর সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ,কোরআনখানি,দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। করোনা সংকটের কারণে সংক্ষিপ্ত পরিসরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
শিল্পী সুলতান নড়াইল পৌর সভার মাছিমদিয়া গ্রামে বাবা মেছের আলী ও মা মাজু বিবির ঘরে জন্মগ্রহণ করেন।
দারিদ্রতার মাঝে বেড়ে ওঠা এই শিল্পীর ডাক নাম ছিল লাল মিয়া। ১৯২৮ সালে নড়াইল ভিক্টোরিয়া কলেচিয়েট স্কুলে ভর্তি হন। লেখাপড়ার পাশাপাশি অবসর সময়ে রাজমিস্ত্রি বাবাকে কাজে সহযোগিতা করতেন এবং ছবি আঁকতেন।

১৯৩৩ সালে পঞ্চম শ্রেণিতে লেখাপড়াকালীণ নড়াইলের জমিদার শ্যামা প্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের ছবি এঁকে তাক লাগিয়ে দেন। জমিদার বাবু মুগ্ধ হন। পড়ালেখা ছেড়ে ১৯৩৮ সালে চলে যান ভারতে।র কোলকাতায়। চিত্রসমালোচক শাহেদ সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। অ্যাকাডেমিক যোগ্যতা না থাকা সত্বেও সোহরাওয়ার্দীর সুপারিশে ১৯৪১ সালে ভর্তি হন কোলকাতা আর্ট স্কুলে। ১৯৪৩ মতান্তরে ১৯৪৪ সালে কোলকাতা আর্চ স্কুল ত্যাগ করে ঘুরে বেড়ান এখানে সেখানে। কিছুদিন কাশ্মীরের পাহাড়ে উপজাতিদের সঙ্গে বসবাস এবং তাদের জীবন জীবিকাভিত্তিক ছবি আঁকেন সুলতান। ১৯৪৫ সালে ভারতের সীমলায় সুলতানের প্রথম একক চিত্র প্রদর্শনী হয়।

১৯৪৮ সালে পাকিস্তানের লাহোরেও চিত্র প্রদর্শনী হয়। চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন কনেন মোহম্মদ আলী জিন্নাহর বোন ফাতিমা জিন্নাহ। ১৯৫০ সালে চিত্র শিল্পীদের আর্ন্তজাতিক কনফারেন্সে পাকিস্তান সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে আমেরিকায় যান। এরপর ইউরোপে বেশ কয়েকটি একক ও যৌথ প্রদর্শনীতে অংশ গ্রহণ করেন। এ সময় বিখ্যাত চিত্রশিল্পী পাবলো পিকাসো,সালভেদর বালি,পলক্লীসহ খ্যাতিমান চিত্র শিল্পীদের ছবির পাশে সুলতানের ছবি স্থান পায়। ১৯৫৩ সালে তিনি নড়াইলে ফিরে আসেন। শিশু কিশোরদের সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি চারুকলা শিক্ষার ব্যবস্থা করেন। ১৯৬৯ সালের ১০ জুলাই দি ইনস্টিটিউট অব ফাইন আর্টস প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন বৃহত্তর যশোর জেলার জেলা প্রশাসক ইনাম আহম্মেদ চৌধুরী। ১৯৮৭ সালে স্থাপিত হয় শিল্পীর স্বপ্নের শিশুস্বর্গ। চিত্রাঙ্কণের পাশাপাশি বাশের বাঁশি এবং সুরযন্ত্র বাজাতেও পটু ছিলেন তিনি। সুলতান নিজ আঙিনায় মিনি চিড়িয়াখানা গড়ে তোলেন। সেখানে নানা জাতের পশুপাখি ছিল। সুলতান হিংসা-বিদ্বেষ পছন্দ করতেন না।
চিত্রশিল্পের মূল্যায়ন হিসেবে সুলতান ১৯৮২ সালে একুশে পদক,১৯৮৪ সালে রেসিডেন্ট আর্টিস্ট,১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ চারুশিল্পী সংসদ সম্মাননা এবং ১৯৯৩ সালে স্বাধীনতা পদক পেয়েছেন। এছড়াও ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ম্যান অব দ্য ইয়ার,নিউইয়র্কের বাযোগ্রাফিক্যাল সেন্টার থেকে ম্যান অব অ্যাচিভমেন্ট এবং এশিয়া উইক পত্রিকা থেকে ম্যান অব দ্য এশিয়া পুরস্কার লাভ করেন। অসুস্থ ১৯৯৪ সালের ১০ অক্টোবর যমোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার পর নড়াইলে প্রিয় জন্মভূমিতে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়।