দশ বছরে মা ও শিশুর মৃত্যুর হার কমায় উল্লেখযোগ্য সাফল্য

দশ বছরে মা ও শিশুর মৃত্যুর হার কমায় উল্লেখযোগ্য সাফল্য

শেয়ার করুন

1523165997
নিজস্ব প্রতিবেদক :

দশ বছরে বাংলাদেশ মা ও শিশুর মৃত্যুর হার কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে৷  নানা ক্ষেত্রে মিলেছে এর স্বীকৃতিও। এই সাফল্য ধরে রাখতে এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে, সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের বিকল্প নেই, বলছেন বিশ্লেষকরা।

বিগত ২৫ বছরে সারা বিশ্বে মায়েদের মৃত্যুর হার ৪৪ ভাগ কমলেও বাংলাদেশে তা কমেছে ৭০ ভাগ। একইভাবে শিশুমৃত্যু হারও কমেছে।

২০১১ তে যেখানে প্রতি হাজারে শিশু মৃত্য ছিল ৩৫ জন। সেখানে ২০১৮ তে তা দাড়িয়েছে ২৯ এ।

প্রসবকালীন অপরিচ্ছন্নতা ও যত্নের অভাবে মেটারনাল অ্যান্ড নিওনেটাল টিটেনাসে মৃত্যুহারও ছিল বেশী।  একই সঙ্গে ডায়রিয়া আর নিউমোনিয়ার প্রার্দুভাব। সফল টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন, ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ এবং ভিটামিন এ সম্পূরক ওষুধের সফল ব্যবহারের  লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব হয়েছে অনেকাংশে। প্রচারনা আর সতর্কতায়  এসেছে সাফল্য।

গর্ভকালীন স্বাস্থ্যসেবায় অভূতপূর্ব সাফল্য এসেছে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোর মাধ্যমে। দেশব্যাপী শিশু স্বাস্থ্যবিষয়ক সচেতনতা এবং ৫৪টি জেলা হাসপাতালে শিশুদের জন্য বিশেষায়িত ইউনিট করার ফলে বছর বছরে কমেছে শিশু মৃত্যুহার।

২০০৭ সালে যেখানে শতকরা ২৩ জন নবজাতকের জন্মের সময় প্রশিক্ষিত ধাত্রীর সহায়তা নিতেন, এখন তা হয়েছে শতকরা ৪২ ভাগ৷

১৯৯০ সালে বাংলাদেশে শিশু মারা গিয়েছিল ২ লাখ ৪১ হাজার। তবে বর্তমানে বার্ষিক শিশু মৃত্যুহার হয়েছে ৬২ হাজার।  লক্ষ্য মাত্রা ২০৩০ সালের মধ্যে প্রতি হাজার নবজাতকের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা ১২ জনে এবং ২০৩৫ সালের মধ্যে ১০ জনে নামিয়ে আনার। তবে,নবজাতক মৃত্যুরোধে আরো পদক্ষেপ সময়ের দাবি বলছেন সংশ্লিষ্টরা।