হাওর অঞ্চলে আগাম বন্যায় ফসল হানির শঙ্কা

হাওর অঞ্চলে আগাম বন্যায় ফসল হানির শঙ্কা

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দীর্ঘ বন্যার পানি এখনো নামেনি হাওর থেকে। ফলে দেরি হচ্ছে একমাত্র ফসল বোরো’র জন্য বীজতলা তৈরিতে। সময়মত ধান লাগাতে না পারলে, পানির ঢলে আগামী মৌসুমেও ফসলহানির শঙ্কায় বিপর্যস্ত হাওরের কৃষক। নীতিনির্ধারকরাও শোনাতে পারছেন না আশাব্যঞ্জক কিছু।

এ বছরের মার্চ-এপ্রিলে আগাম বন্যায় প্লাবিত হয় হাওরের হাজার হাজার হেক্টর ফসলি জমি। পরপর দু’বার ফসলহানিতে দিশেহারা হাওরের কৃষক। এক ফসলের উপর নির্ভরশীল জনপদের সেই কান্নার প্রভাব পড়ছে দেশের খাদ্য নিরাপত্তায়ও।

বানের পানি এখনো সরছে না হাওর থেকে। অগ্রহায়ণের প্রায় মাঝামাঝি এ সময়েও, সুনামগঞ্জের হাওরগুলোতে থৈ থৈ পানি। সংলগ্ন নদীগুলোতেও পানি কমার গতি ধীর, ফলে হাওরের মুখগুলোতে পানি সরার গতি মন্থর।

অন্যান্য বছর এ সময় যখন বীজতলা তৈরির কাজে ব্যস্ত থাকেন কৃষক, এবার তখন অলস বসে থাকতে হচ্ছে। মধ্য নভেম্বরের মধ্যেই বীজতলায় চারা করতে না পারলে, ক্ষেতে ধান লাগাতে দেরি হয়ে যাবে।

পরবর্তী বর্ষায় পানি বাড়ার আগেই ফসল তুলতে না পারলে, আবারো ফসলহানির ঝুঁকিতে পড়বেন তাঁরা। নীতিনির্ধারকরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বন্যার স্থায়িত্ব বাড়ছে। আবার বন্যার পলিতে নদীর নাব্যতা হ্রাসের ফলে, হাওরেও পানি থাকছে বেশি সময় ধরে। এ জায়গায় এখনো প্রকৃতির কাছে অসহায়ত্বের কথাই বলছেন তাঁরা।

অবশ্য ইতোমধ্যে হাওর-সংলগ্ন নদীগুলোতে ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু করেছে সরকার। তবে এ বছরও আগাম বান হলে সব চেষ্টাই যাবে বিফলে।