সরকারি বিরোধী দল জাতীয় পার্টি!

সরকারি বিরোধী দল জাতীয় পার্টি!

শেয়ার করুন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর, দেশে প্রথমবারের মতো সরকারি-বিরোধী দল হিসেবে পরিচিতি পায় এইচ এম এরশাদের জাতীয় পার্টি। দলটির নেতারা বলছেন, সাংবিধানিক শূন্যতা পূরণ আর মানুষ পুড়িয়ে মারার রাজনীতি বন্ধ করতেই ঐক্যমতের সরকারে সামিল হয়েছিলেন তারা।
জাতীয় পার্টির নেতাদের একই সঙ্গে সরকারের মন্ত্রী পরিষদে ও সংসদে বিরোধী দলে থাকার ইচ্ছাকে কাঁঠালের আমসত্ত্ব বলে উল্লেখ করেছিলেন প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। আওয়ামী লীগের ভেতরে থেকেই ২০১৪ সালে নির্বাচনের পর জাতীয় পার্টির এই অবস্থানের বিরোধিতায় সরব ছিলেন তিনি।
সংবিধানে বিরোধী দল নিয়ে স্পষ্ট কিছু বলা না হলেও জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী বিধিতে বলা হয়েছে, বিরোধীদলের নেতা অর্থ, স্পীকারের বিবেচনামতে যে সংসদ-সদস্য সংসদে সরকারী দলের বিরোধীতাকারী সর্বোচ্চ সংখ্যক সদস্য নিয়ে গঠিত ক্ষেত্রমত দল বা অধিসঙ্গের নেতা।
তবে বিরোধী দলের নেতারা সরকারের মন্ত্রী পরিষদে থাকতে পারবেন কি পারবেন না সে বিষয়টি স্পষ্ট নয় এখানেও। এ বিষয়ে বিএনপি নেতারা বলছেন, সংবিধানে যাই থাকুক, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের মত জাতীয় পার্টিও ইতিহাসের কাঠগড়ায় থাকবে। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জাতীয় পার্টির মহাসচিবের দাবি, দেশের মানুষকে সহিংসতা থেকে মুক্তি দিতেই ঐক্যমত্যের সরকারের যোগ দিয়েছিলো জাতীয় পার্টি।