ভুলে ভরা নতুন বই

ভুলে ভরা নতুন বই

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

অস্পষ্ট ছাপা, অসঙ্গতি আর ভুল তথ্য-উপাত্ত রয়েছে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের প্রাথমিক-মাধ্যমিক স্তরের বিভিন্ন বিষয়ের বইয়ে। নিম্নমানের ছাপা, বানান ভুলসহ নানা বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয় গত বছর। এ বছরও এর ব্যতিক্রম ঘটাতে পারেনি জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড।

প্রায় সাড়ে ৪ কোটি শিক্ষার্থীর মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণের জন্য কর্মযজ্ঞটা চলেছে অনেক আগে থেকেই। নতুন বই, নতুন ছাপা, তারপরও ভুলের বিতকর্টা পিছু ছাড়ছে না।

বাংলা সাহিত্যের অহঙ্কার পল্লীকবির জীবনবৃন্তান্তে অনাকাঙ্খিত ভুল। কোথাও য-ফলার আধিক্য, কোথাও বুদ্ধিজীবী হয়ে গেছে বুদ্ধজীবী, এ-কার হারিয়ে লেখা হয়েছে লখা। শিশুদের শব্দ ভাণ্ডার বাড়াতে, শিক্ষার প্রথম জীবনেই শেখানোর চেষ্টায় অপ্রচলিত শব্দ।

বিগত বছরের মতো এ বারও স্বনামধন্য কবির কবিতায় ঘটেছে শব্দ পরিবর্তন। কবি জসীমউদ্দিন, কবি সুফিয়া কামালের লেখায় তা স্পষ্ট। বইয়ে বাংলাদেশের আয়তন ১ লাখ ৪৭ হাজার ৫৭০ বর্গকিলোমিটার। অথচ ছিটমহল বিনিময় আর নতুন সমুদ্রসীমার ৭০ হাজার বর্গকিলোমিটার যুক্ত হয়ে সংখ্যাটা হওয়ার ছিল ২ লাখ ৪৬ হাজার ৩৭ বর্গ কিলোমিটার।

২০১১ সালের আদম শুমারির হিসেব বইতে। যেখানে ২০১৬ এর হালনাগাদ তথ্য আছে। বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ ব্যাধি হলেও, এ বিষয়ের নতুন আইন ধরা পড়েনি কর্মকর্তাদের চোখে। তাই শেখানো পুরনো আইন।

বইয়ের মলাট ঝকঝকে হলেও, নিম্ন মানের কাগজ আর ছাপায় বোঝা দায়।চলতি বছরে বই উৎসবের মধ্য দিয়ে নতুন বই নিয়ে শিক্ষার্থীরা ফিরেছে ঘরে। কিছুটা যত্নশীল হলেই হয়তো পূর্ণমাত্রা পেত এ সাফল্য।