ব্যাংকিং খাত নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ অর্থ মন্ত্রণালয়

ব্যাংকিং খাত নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ অর্থ মন্ত্রণালয়

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নেতৃত্বে দূরদর্শিতার অভাবে ব্যাংকিং খাত নিয়ন্ত্রণে অর্থ মন্ত্রণালয় ব্যর্থ বলে মন্তব্য করেছে বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডি। রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির সম্মানীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন নির্বাচনের আগে সামষ্টিক অর্থনীতির অবস্থা অস্থিতিশীল হওয়াটা আশংকাজনক।

এডিপি বাস্তবায়নের হার, সামাজিক উন্নয়ন সূচক ও বৈদেশিক বিনিয়োগের হার বৃদ্ধিসহ কিছু ইতিবাচক দিক থাকলেও অন্যান্য বছরের তুলনায় ২০১৭-১৮ সালের অর্থনীতি বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে বলে মনে করছে সিপিডি।

সরকার দারিদ্র দূরীকরণ ও উন্নয়নে যেসব ব্যয় করছে সেখানে অনিয়মের ঘটনা ঘটছে। প্রবৃদ্ধি বাড়লেও বেড়েছে আয় বৈষম্য। সরকারের দাবি অনুযায়ী দারিদ্রের সংখ্যা ৩২ শতাংশ থেকে কমে ২৪ শতাংশ হলেও, দারিদ্র দূরীকরণের হার আগের চেয়ে কমেছে। তাই প্রবৃদ্ধির গুণগত মান নিয়েও আছে প্রশ্ন।

২০১৭-১৮ বছরের অর্থনীতি নিয়ে অন্তবর্তীকালীন এক পর্যালোচনায় এসব তথ্য তুলে ধরে বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ- সিপিডি। দেশের সামষ্টিক অর্থনীতির অবস্থা এখন অস্থিতিশীল। ২০১৭ সালকে ব্যাংকিং কেলেঙ্কারীর বছর উল্লেখ করে সিপিডির সম্মানীয় ফেলো দেবপ্রিয় ভট্রাচার্য বলেন, দূরদর্শিতার অভাবে ব্যাংকিং খাত নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

তিনি বলেন, দেশের অর্থনীতির প্রথাগত ৩টি শক্তির জায়গা রেমিটেন্স, রপ্তানী আয় ও কৃষি উৎপাদন দুর্বল হয়ে পড়ছে। আর মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে।