বৃষ্টির রং রুপালি

বৃষ্টির রং রুপালি

শেয়ার করুন
cover
রুপালি বৃষ্টি বইয়ের প্রচ্ছদ।

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ:

‘অসংখ্য ছোট ছোট রুপালি ওয়াটার বল আমার উপর আছড়ে পড়ছে। এঁকে বেঁকে। তাল, লয় সৃষ্টি করে। আহ! কি চমৎকার! কি আনন্দ। আমি এগিয়ে চলছি। রুপালি বৃষ্টি ঝরছে। অঝর ধারায়। আমার চার পাশে ঝর ঝর ধারায়’। আহা কী চমৎকার শুরু। হোয়াট আ স্টার্টিং! ক্রিকেট হলে বলা হত ওয়ান্ডারফুল বিগেনিং।

বৃষ্টির কি কোনো রং আছে? রং না থাকলেও আছে নানা ধরণ।  বৃষ্টির কোনো রং না থাকলেও বাঙালি বৃষ্টিকে ধারণ করে নানা রঙে। এ বৃষ্টিকে ঘিরে থাকে নানা আয়োজন। জ্যোৎস্না বিলাসের মত মহা-সমারোহে দলে-বলে পালন করে বৃষ্টি বিলাস। আবহাওয়া খারাপ হওয়ার সাথে সাথে রোমান্টিক বাঙালিদের রোমান্টিসিজম যেন বাড়তেই থাকে।

ঠিক যেন নিউটনের তৃতীয় সূত্রের উপাখ্যান। মেঘের ঢাকের সাথে সাথে বাঙালির রোমান্টিকতাও বাড়বে! ভাগ্যিস নিউটন বেচে নাই, থাকলে হয়ত এ সূত্রও দিয়া দিত। আজ নিউটন বেচে নেই তাই বলে বাঙালিরা বসে থাকবে? কবি সাহিত্যক হতে শুরু করে শিল্পিরাও বৃষ্টিকে রাঙিয়েছেন নানা রঙে। আছে নানা কাব্য -মহাকব্য এবং অনেক বিখ্যাত গান। যেন সবাই উঠে পড়ে লেগেছেন বৃষ্টির বৃষ্টি বিলাসে।

mahfujul
কথা সাহিত্যিক খোন্দকার মাহফুজুল হক।

কম যান না এ প্রজন্মের কথা সাহিত্যিক খোন্দকার মাহফুজুল হকও। ইতিমধ্যে লিখে ফেলেছেন অনেক গল্প-উপন্যাস। ছড়া-কবিতা দিয়ে যার লেখার হাতে খড়ি।এসব লিখেই শেষ? না, লিখেছেন ফেরা, সোনাই বিবি আর মুখোশের অন্তরালে নামে তিনটি পাঠক প্রিয় বই। নামের আগের লেখকের তকমা লেগে গেছে, বৃষ্টি নিয়ে না লিখলে হয়? তাই তিনি লিখে ফেলেছেন রুপালি বৃষ্টি। তার কাছে বৃষ্টির রূপ হল রুপালি। তার কাছে রেইন মানে সিলভার রেইন। আহা!

এ তরুণ লিখকের মতে, ‘বৃষ্টি নিয়ে লেখকদের ব্যাপক মাতামাতি। লেখকদের মধ্যে কবিগণ বিশেষ এক স্থান দখল করে আছেন। বৃষ্টির বিষয়ে তাদের তো কোন কথাই নেই! পারলে তাদের একক সম্পত্তি করে ফেলত। আর গদ্য-কাররা হত আগন্তুক’। তাইতো! আসলে বৃষ্টিকে প্রত্যেকটা বাঙ্গালিই ধারণ করে বিশেষ স্থানে। এ বিশেষ স্থানটা একজনের কাছে একেক রকম।

রুপালি বৃষ্টি শুরু হয় রুপালি বৃষ্টি দিয়েই, আর শেষ হয় বাসন্তী সুরে। মাঝে রয়েছে বাদলা রাতে, ফেরিওয়ালা, রংধনু, সেই মেঘ এই রোদ্দুর শেকড়ের সুর, বৃষ্টির ফোঁটা, অতিপ্রাকৃত, পরাবৃত্ত, টাকার হাওয়া, মায়া, ত্রিসুর, বাঁকা চাঁদ, ত্রিরথ, টাকার বিছানা, অনিঃশেষ জগতের যাত্রী এবং দ্বিজ।

খোন্দকার মাহফুজ রুপালি বৃষ্টিকে এঁকেছেন ১৮ টি ছোট গল্পে। প্রতিটি গল্পে রয়েছে বৃষ্টির ছোঁয়া। বৃষ্টি দিয়ে শুরু করে শেষ করেছেন বসন্তে। তিনি বাঙালিকে বৃষ্টিতে বুঁদ করে রাখতে চান না। জ্যোৎস্না বিলাস-বৃষ্টি বিলাস হতে পারলে বসন্ত বিলাস কেনো নয়। তাই বৃষ্টি দিয়ে শুরু করে শেষ দিয়েছেন বসন্তে।

বইটিতে রোমান্টিকতা ছড়ানো থাকলেও উৎসর্গ পাতা ঝুড়ে ছিল পাওয়া না পাওয়ার গল্প। ছিল আবেগ ভালবাসা এবং চাপা অভিমান ও। উৎসর্গ পাতা থেকে কয়েকটা বাক্য তুলে দিলাম, বাকীটা লেখকের হাতের গন্ধ বই থেকেই পড়বেন আশা করি। ‘চারদিকে প্রচুর অক্সিজেন। সে গ্রহণ করার সুবিধার্থে তার নাকের সামনে তা রেখে দেওয়া হল। অভিমানী তা গ্রহণ না করে পাড়ি জমালো চিরন্তন জগতে। আহা! আহারে মায়া’!

বইটি পড়ে অধ্যাপক এবং সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের সাবেক পরিচালক ড. মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ‘বিচিত্র জীবন এবং নান ঘটনামালার উপর রেখাপাত করে লেখা বইটি পড়লে সকলের ভাল লাগবে বলে আমি মনে করি’।

এবারের বই মেলায় খোন্দকার মাহফুজুল হকের এ রুপালি বৃষ্টি বইটি বাংলাদেশ কো-অপারেটিভ বুক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত হয়েছে। বাংলা একাডেমি চত্বরে ২৮ নাম্বার স্টলে বইটি পাওয়া যাবে। কিছুক্ষণের জন্য হলেও ভিজে আসুন রুপালি বৃষ্টিতে। বৃষ্টি। রুপালি বৃষ্টি! সিলভার রেইন! আহা!