দুদকের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ

দুদকের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সরকারি হস্তক্ষেপ, ঠিকভাবে অভিযোগ উপস্থাপন করতে না পারাসহ নানান জটিলতায় দুদক মানেই যেন নখ দন্ত বিহীন বাঘ। কিন্তু দুদকের মামলায় যখন বিএনপি চেয়ারপার্সন জেলে যান, তখন কি নতুন চ্যালেঞ্জে পা-দিলো প্রতিষ্ঠানটি?

নখ-দন্তহীন বাঘ তকমা রয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের গায়ে। আর নিজের শেষ কর্ম দিবসে এ নামটি দিয়েছিলেন কমিশনেরই সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম রহমানের। এরপর সময় গড়িয়েছে, সংশোধন হয়েছে দুদক আইন। পরিবর্তন এসেছে কমিশনে। তবে দুর্নীতি বিরোধী এই প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে সমালোচনা কমেনি।

সব শেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর হলফনায় সম্পদের তথ্য গোপন করেও ক্ষমতাশীন দলের কয়েক জন সংসদ সদস্যর দায়মুক্তি অথবা বেসিক ব্যাংক থেকে হাজার কোটি টাকা আত্মসাতে অভিযুক্ত হলেও ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুর মুক্ত হাওয়ায় অবাধ ঘোরাফেরা, এই সমালোচনায় যুক্ত করেছে বহুমাত্রা।

তবে সব শেষ খালেদা জিয়ার দুর্নীত মামলার রায়ে প্রশংসা পাচ্ছে দুদক। এ মামলায় ক্ষমতার অপব্যবহার করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে পাচ বছরের সাজা হয়েছে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর। দুদকের আইনজীবী বলেছেন সঠিক ভাবে তথ্য প্রমান উপস্থাপন করতে পারায় তাদের এই সফলতা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এই ডেপুটি গভর্নর মনে করেন প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা আরো বাড়াতে এ রায় যথেষ্ঠ কাজ করবে। দুদককে শক্তিশালী দুর্নীতিবাজদের ব্যপারে কঠোর হবার তাগিদ টিআইবির ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুলতানা কামালের।