রূপপুর বিদুৎকেন্দ্র পরিবেশের জন্য নিরাপদ

রূপপুর বিদুৎকেন্দ্র পরিবেশের জন্য নিরাপদ

শেয়ার করুন

ruppur-cnewsbd_02.03.180নিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিদ্যুৎ প্রকল্প, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা থাকলেও, সফলভাবে শেষ হয়েছে এর প্রথম ধাপের কাজ। বিদ্যুৎকেন্দ্রটির প্রথম ইউনিট ২০২৩ সালে এবং দ্বিতীয় ইউনিট ২০২৪ সালে উৎপাদনে আসার সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আধুনিক মডেলের রিঅ্যাক্টর দিয়ে তৈরি এই বিদুৎকেন্দ্র পরিবেশের কোন ক্ষতি করবে না।

বিশ্বের ৩১টি দেশে ৪৪৯টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে, যা মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রায় ১২ শতাংশ যোগান দিচ্ছে। ১৪টি দেশে আরও ৬৫টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন। আর ২০২৫ সালের মধ্যে ১২৭ দেশে আরও ১৭৩টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে। যার মধ্যে বাংলাদেশও রয়েছে।

পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্ষেত্রে বড় চ্যালেঞ্জ এর রক্ষণাবেক্ষণ ও দুর্ঘটনার সম্ভাবনা হ্রাস করা। রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে সহায়তাকারী রাশিয়ান স্টেট নিউক্লিয়ার এনার্জি কর্পোরেশন ‘রোসাটম’- এর গবেষকরা বলছেন, এক্ষেত্রে এখন আর তেমন ঝুঁকি নেই।

তবে রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যু৭ কেন্দ্রের জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করা; বিপজ্জনক জ্বালানি বর্জ্য ফেরত নেওয়ার প্রক্রিয়া; চাহিদা অনুযায়ী সার্ভিস দেয়া এবং পারমাণবিক অবকাঠামো উন্নয়ন ও দক্ষ জনবলসহ বেশ কয়েকটি চ্যালেঞ্জ রয়েই যায়।

সরকারের দাবি কিছু ঝুঁকি থাকা সত্বেও রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বৃহত্তর জনগোষ্ঠির বিদ্যুতের চাহিদা মেটাবে, যা দেশের জন্য এই মুহুর্তে প্রয়োজন।