শুক্রবার এটিএন বাংলায় ‘ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট’ এর গ্র্যান্ড ফাইনাল

শুক্রবার এটিএন বাংলায় ‘ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট’ এর গ্র্যান্ড ফাইনাল

শেয়ার করুন
Photo 1
‘নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা’ নিয়ে আয়োজিত বিতর্ক প্রতিযোগিতার প্রধান অতিথি বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি এবং ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণসহ অন্যান্য অতিথিদের সাথে প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন দল ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বিতার্কিকদের দেখা যাচ্ছে। প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানটি আগামী ২৬ জানুয়ারি শুক্রবার, সকাল ১১টা ০৫ মিনিটে এটিএন বাংলায় প্রচারিত হবে।

এটিএন টাইমস ডেস্ক :

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি ও এটিএন বাংলার যৌথ আয়োজনে শেষ হয়েছে ‘ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট’ -এর গ্র্যান্ড ফাইনাল ও  পুরস্কার বিতরণ। ২০১৭ সালে সারা বছরব্যাপী আয়োজিত সংসদীয় ধারার এই বিতর্ক প্রতিযোগিতায় দেশের সরকারি ও বেসরকারি ৩২টি বিশ্ববিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে। নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা নিয়ে আয়োজিত চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। ছায়া সংসদের আদলে আয়োজিত প্রতিযোগিতায় সভাপতি হিসেবে স্পীকার হিসেবে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন আয়োজক সংগঠন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান এবং ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান এম. এ. সবুর অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। চূড়ান্ত পর্বের এই বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। রানার আপ ও তৃতীয় স্থান অধিকার করে যথাক্রমে বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন এন্ড টেকনোলজি এবং প্রাইম ইউনিভার্সিটি। প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানটি আগামী ২৬ জানুয়ারি শুক্রবার, সকাল ১১টা ০৫ মিনিটে এটিএন বাংলায় প্রচারিত হবে। চ্যাম্পিয়ন দলের বক্তরা ছিলেন জান্নাতুল ফেরদৌসী, মো. মাহফুজুল বাশার, কাওছার আলম। রানার আপ দলের বক্তরা ছিলেন-  সৈয়দ খালিদ মাহমুদ, মেহেদী হাসান, ইমন বিশ্বাস শুভ। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে ট্রফি, ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেটসহ চ্যাম্পিয়ন দলকে নগদ ২ লক্ষ যথাক্রমে রানার আপ দলকে ১ লক্ষ এবং তৃতীয় স্থান অর্জনকারী দলকে ৫০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সোমা ইসলাম,  অনিমেষ কর, ঝুমুর বারি ও  মইনুল হক চৌধুরী।

Photo 3
‘নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা’ নিয়ে আয়োজিত ছায়া সংসদের চ্যাম্পিয়ন দল ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিকে ট্রফি প্রদান করছেন বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি এবং ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানটি আগামী ২৬ জানুয়ারি শুক্রবার, সকাল ১১টা ০৫ মিনিটে এটিএন বাংলায় প্রচারিত হবে।

প্রতিযোগিতার আয়োজক সংগঠন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ প্রতিযোগিতার আয়োজন নিয়ে বলেন, গত ২০ বছরে ভাষা দিবস বিতর্ক, স্বাধীনতা দিবস বিতর্ক, কন্যাশিশু দিবস বিতর্ক, মাদকবিরোধী বিতর্ক, ভাষা বিতর্ক, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিতর্ক, অভিবাসী দিবস বিতর্ক, দুর্নীতিবিরোধী বিতর্ক, নির্বাচনী বিতর্ক, ক্যাম্পাস পার্লামেন্ট, ইয়ুথ পার্লামেন্ট এবং সর্বশেষ ২০১৭ সালের পাবলিক পার্লামেন্ট বিতর্ক প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়েছে। এই পর্যন্ত স্কুল, কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে এই জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতার প্রায় ১ হাজার পর্ব এটিএন বাংলায় প্রচারিত হয়। জনাব কিরণ আরও জানান এই জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতাসমূহে গত ২০ বছরে যারা অতিথি হিসেবে সাবেক প্রধান বিচারপতি ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান বিচারপতি হাবিবুর রহমান, সাবেক স্পীকার (বর্তমানে মহামান্য রাষ্ট্রপতি) এডভোকেট আবদুল হামিদ, স্যার ফজলে হাসান আবেদ, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকার উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান, এডভোকেট সুলতানা কামাল, ড. মির্জা আজিজুল *ইসলাম, রাশেদা কে চৌধুরী, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এটিএম শামসুল হুদা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মোহিত, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, বিরোধী দলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ যেমন ড. আব্দুল ম্ঈন খান, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আইনবিদ ব্যরিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ব্যরিস্টার মওদুদ আহমেদ, সিপিবির সভাপতি মোজাহিদুল ইসলাম সেলিম, পরিবেশবিদ প্রফেসর আনু মুহাম্মদ, পুলিশের মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হক বিপিএম পিপিএম, ডিএমপি কমিশনার মো: আসাদুজ্জামান মিয়া, টিআইবি নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামানসহ শিক্ষাবিদ, গবেষক, সমাজ ও গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন।