শিক্ষকদের এমপিওভুক্তিতে কতো টাকা লাগতে পারে

শিক্ষকদের এমপিওভুক্তিতে কতো টাকা লাগতে পারে

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তে পদ্ধতিগতভাবে নন এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান এমপিও করা হবে বলে ঘোষণা এসেছে ৫ জানুয়ারি। এমপিও করণের থেমে যাওয়া প্রক্রিয়া চলমান হলে, নতুন করে সরকারের প্রয়োজন হবে বার্ষিক প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা। বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রয়োজন বিবেচনায় খাত বরাদ্দ হলে, আর্থিক চাপে পড়বে না সরকার।

দীর্ঘ ৭ বছর, নন এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নানা কষ্টে দিন কেটেছে। বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন হয়েছে। সর্বশেষ কর্মসূচি- জাতীয় প্রেসক্লাবে আমরণ অনশন।

তবে, প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে শিক্ষকরা সরে এসেছেন কর্মসূচি থেকে। নতুন ঘোষণা বাস্তবায়ের আশায় শুরু দিন গণনা। তবে,  এর অঙ্কটা কেমন?

সর্বশেষ এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৬ হাজার ১৮০টি। এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন বাবদ প্রতি মাসে ৯৪১ কোটি ৫০ লাখ ২৪ হাজার ৭১১ টাকা সরকারের ব্যয় হচ্ছে। ২০১০ সালে শেষ ১ হাজার ৬শ ২৪টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল। প্রক্রিয়া চলমান রাখার কথা বলা হলেও, অর্থ সংকটের কারণ দেখিয়ে থেমে যায় সে প্রক্রিয়া।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অধিদপ্তরের নতুন করা প্রস্তাবে এমপিওবিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৭ হাজার ১শ ৪২টি। এমপিও করতে বার্ষিক খরচ ধরা হয়েছে ২ হাজার ১শ ৮৪কোটি ২৭ লাখ ৫২ হাজার ২৫০টাকা। এর মধ্যে ১২২৭টি নিম্ন মাধ্যমিকের জন্য  ২১৯ কোটি ৭১ হাজার৩০০ টাকা, ১ হাজার ৮৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য ৩৬৮ কোটি ১৫ লাখ ২৭ হাজার ৮৫০ টাকা। আর স্তর উন্নয়ের ক্ষেত্রেও লাগবে কয়েক কোটি।

সারাদেশে এমপিওভুক্তির সব শর্ত পূরণ করে অপেক্ষমাণ পাঁচ হাজার ২৪২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এগুলোতে কর্মরত এমপিওভুক্তির যোগ্য শিক্ষক-কর্মচারী আছেন প্রায় ৭৫ হাজার। অর্থনীতিবিদদের মতে, মানুষ গড়ার কারিগরদের এ দাবি পূরণে সরকারের যে দুই হাজার টাকা দরকার হবে তা প্রয়োজন বিবেচনায় খাদ বরাদ্ধ হলে সরকারে সমস্যা হবে না। তারাও মতামত দিয়েছেন শিক্ষকদের এ দাবি মেনে নেয়া উচিত। শিক্ষা খাতকেই সবার আগে প্রাধান্য দিতে হবে।