৪৬ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি

৪৬ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লাগামহীন দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও ব্যাংক খাতের বিশৃঙ্খলা বছর জুড়েই ছিলো আলোচনার কেন্দ্রে। তবে ইতিবাচক দিক এবারই প্রথম দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি পৌছেছে সর্বোচ্চ উচ্চতায় । রাজস্ব আদায়, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, রপ্তানি ও প্রবাসী আয়ের প্রবৃদ্ধিই ছিল এর অন্যতম কারণ।

দেশজ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি দিয়েই মূলত দীর্ঘমেয়াদে কোনো দেশের অর্থনীতির পরিমাপ করা হয়। সম্প্রতি প্রকাশিত বাংলাদেশ পরিসখ্যান ব্যুরোর হিসাব অনুযায়ী, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দেশে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ২৮ শতাংশ। দেশের ইতিহাসে এই প্রথম এত প্রবৃদ্ধি অর্জিত হল, যা ছিল নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও বেশি।

তবে এর মধ্যেই লাগামহীন চাল ও পেঁয়াজের বাজার নিয়ে বছর জুড়েই ছিল তীব্র সমালোচনা। আর ব্যাংকিং খাতে বছরজুড়ে বিশৃংখলা ছিল উল্লেখ করার মতো। বিশেষ করে রাজনৈতিক বিবেচনায় অনুমোদন পাওয়া ব্যাংকগুলোতে অনিয়ম ও লুটপাটের চিত্র সরকারের অনেক অর্জনকে ম্লান করে দিয়েছে।

অন্যদিকে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। রপ্তানি বাণিজ্যেও ছিলো উর্ধ্বগতি। বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ বেড়ে প্রায় ১৯ শতাংশে পৌঁছেছে। যদিও এর সদ্ব্যবহার নিয়ে অর্থনীতিবিদদের মধ্যে যথেষ্ট উদ্বেগ রয়েছে।

তবে বিনিয়োগ বাড়াতে সরকারি-বেসরকারি অংশিদারীত্বের উদ্যোগকে আরও কার্যকর করার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা।