ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

শেয়ার করুন

image-13056নিজস্ব প্রতিবেদক :

মৌসুমের শুরুতে বন্যা ও অতিবৃষ্টি যে শঙ্কা নিয়ে এসেছিল, তা কেটে গেছে। ধানের বাম্পার ফলনে এখন কৃষকের মুখে হাসি। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের ধুম লেগেছে চাষী পরিবারে।

অগ্রহায়ণের ভরা ক্ষেতে সোনালি ধানের দোলা দেখে হাসি ফুটেছে কুষ্টিয়ার কৃষকদের মুখে। একেকটি শীষ যেন কৃষকদের সোনালী স্বপ্ন। যদিও মৌসুমের শেষের দিকে হঠাৎ বৈরী আবহাওয়ায় উঠতি রোপা আমন ধানের ক্ষতিতে কৃষকরা শঙ্কিত ও দুশ্চিন্তায় পড়েছিল। অবশেষে, ভালো ফলনে আনন্দের দোলা এখন কৃষকের মনে। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজে ব্যস্ত এখন চাষীরা।

বিঘা প্রতি ধান উৎপাদনে খরচ হয়েছে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা। ফলন হচ্ছে বিঘা প্রতি ১৪ থেকে ১৮ মন পর্যন্ত। আবহাওয়ার ক্ষতি ও খরচ বাদ দিয়ে কৃষকরা লাভের মুখ দেখবেন বলেই আশা কৃষিবিদদের।

আমন ধান ঘরে তোলায় এখন ব্যস্ত রাজবাড়ির কৃষকরাও। গত জুন-জুলাইয়ের বন্যা ও ভারি বর্ষণে রোপা ও বোনা আমনের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে, দ্বিতীয় ধাপে আমনের চাষ করেন কৃষকরা। ভালো ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় তাদের চোখে এখন আশার আলো।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, রাজবাড়ীর পাঁচ উপজেলায় এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ হাজার হেক্টরেরও বেশি জমিতে আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে, বিগত বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন কৃষকরা।