খেলনার বাজারের প্রায় ৪০ ভাগ দখল করে আছে বিদেশি পণ্য

খেলনার বাজারের প্রায় ৪০ ভাগ দখল করে আছে বিদেশি পণ্য

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

খেলনার বাজারের প্রায় ৪০ ভাগ দখল করে আছে বিদেশি পণ্য। অর্ধযুগ আগেও বিদেশি পণ্য আমদানি হতো প্রায় ৭০ ভাগ। দেশীয় খেলনার বাজার বিস্তৃত হওয়াই আমদানি-নির্ভরতা কমে যাওয়ার কারণ্। তবে দেশি খেলনার তুলনায় বিদেশি খেলনার মান নিয়েই এখনো সন্তুষ্ট ক্রেতারা।

শৈশবের সঙ্গে খেলনার রয়েছে এক নিবিড় সম্পর্ক। খেলার জায়গা কমে আসায় শিশুদের এই খেলনাপ্রীতি দিন দিন বাড়ছে। চাহিদা থাকায় বড় হচ্ছে খেলনার বাজার। প্রায় আট হাজার কোটি টাকার খেলনার বাজারে এখন বিদেশি পণ্যের যোগান প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার, যার প্রায় পুরোটাই চীনের দখলে।

দেশীয় খেলনা বাজার দখল করতে শুরু করলেও চীনের এই খেলনাগুলো উন্নত মেশিন আর প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে তৈরী হওয়ায় এসবের কদর কমছে না। রাজধানীর গুলশান ডিএনসিসি মার্কেট, বসুন্ধরাসহ বেশ কিছু খেলনার দোকান ঘুরে দেখা যায়, চীনা বিভিন্ন ব্যান্ডের মার্সিডিজ কার, বাইক, সাইকেল, সিনেমার ফিগার, পুতুল, প্লেহাউস শিশুদের পছন্দ সবচেয়ে বেশি। ক্রেতারা বলছেন, মানের দিক বিবেচনায় এসব বিদেশি পণ্যেই আস্থা তাদের।

বিদেশি পণ্যের মান নিয়ে সন্তুষ্ট বিক্রেতারাও। তবে তাদের দাবি, ব্যবসার সার্বিক উন্নতিতে কমাতে হবে আমদানি শুল্ক।

২০০১ সাল থেকে খেলনা আমদানি শুরু করেন বাংলাদেশ টয় মার্চেন্ট, ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সভাপতি শাহজাহান মজুমদার। তিনি স্বীকার করলেন, দেশে খেলনার বড় বাজার তৈরী হওয়ায় প্রতিদিনই আমদানি কমছে।

চমক লাগানো নিত্যনতুন পণ্যের কারণে বিদেশি খেলনা আমদানি বন্ধ হবেনা এটা সত্য। তবে দেশীয় বাজার বিস্তৃত হওয়ার কারণে আমদানি আরও সীমিত হয়ে পড়তে পারে বলে মনে করেন এই ব্যবসায়ী।