খরায় পুড়ছে পাট চাষীদের কপাল

খরায় পুড়ছে পাট চাষীদের কপাল

শেয়ার করুন

Jute_plant

ছবি প্রতিকী

কার্ত্তিক দাস, নড়াইল: পাটের জন্য বিখ্যাত নড়াইল জেলা। এর মধ্যে লোহাগড়া উপজেলার মিঠাপুর এলাকা অন্যতম। এ বছরের শুরুতেই খরার প্রভাবে এবং পানির অভাবে এ জেলার পাট চাষিরা পড়েছেন চরম বিপাকে। বৃষ্টির অভাবে খাল-বিলসহ বিভিন্ন জলাশয়ে পানি না থাকায় ক্ষেতে পানি দিতে পারছেন না কৃষকেরা। তবে কিছু কিছু জায়গায় সেচ দিতে স্যালোমেশিন ব্যবহার করতে দেখা গেছে কৃষকদের।
লোহাগড়া উপজেলার মিঠাপুর গ্রামের কৃষক ছলেমান মোল্যা (৬০) জানান,জেলার বেশিরভাগ মানুষ কৃষিনির্ভর। ধান,গমের পাশাপাশি পাট হচ্ছে তাদের অন্যতম ফসল। আগে এই এলাকার কৃষকেরা বৃষ্টির পর পাটের বীজ বপন করতো। বীজ বপন করার ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্যেই ঘণঘণ বৃষ্টি হতো। কখনো সেচের প্রয়োজন হতো না। তাই সেচ ব্যবস্থাও ছিল না। তখন আবহাওয়া অনুকুলে থাকার কারণে পাটের উৎপাদনও ভালো হতো।
দরিমিঠাপুর গ্রামের রমজান আলী জানান,পাটের বীজ বপন করার আগে থেকে এ পর্যন্ত বৃষ্টি না হওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে এলাকার কৃষকেরা। খাল-বিল,জলাশয়গুলোও শুকিয়ে যাওয়ায় সেচ দিতে পারছেন না। যাদের আর্থিক সামর্থ আছে তারা বিকল্প হিসেবে স্যালোমেশিন দিয়ে সেচের ব্যবস্থা সেরে নিচ্ছে। দরিদ্র কৃষকেরা সেচ দিতে না পারায় তাদের ফসল নষ্ট হতে চলেছে।
জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে,এ বছর জেলায় ২০ হাজার ৩৭৪ হেক্টর জমিতে পাট চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু আবাদ হয়েছে ১৮ হাজার ৯৯০ হেক্টর।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক প্রবীর কুমার বলেন,বৃহত্তর যশোর জেলায় (গত ২৪ এপ্রিল) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা (৪০,১৫ ডিগি) ছিল। প্রচন্ড খরার কারণে জেলার কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। পানির অভাবে অনেক জমির পাট শুকিয়ে যাচ্ছে। এতে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তিনি বলেন, সেচের মাধ্যমে জমিতে পানি দেওয়ার জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অনেকে সে ব্যবস্থা নিয়েছেন। তিনি দাবি করেন,বৃষ্টি হলেই চাষিরা পাটের বীজ বপন করতে আগ্রহী হয়ে উঠবে। এতে লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে যেতে পারে।