বাজারে কোহিনূর কেমিক্যালের প্রথম খাদ্য পণ্য রিদিশা বিস্কুট

বাজারে কোহিনূর কেমিক্যালের প্রথম খাদ্য পণ্য রিদিশা বিস্কুট

শেয়ার করুন

Final pic of Reedishaখাদ্যপণ্যের বাজারে এল দেশের কসমেটিক ও টয়লেট্রিজ খাতের ঐতিহ্যবাহী শিল্পগোষ্ঠী কোহিনূর কেমিক্যাল। এ জন্য রিদিশা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড নামে আলাদা একটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে শিল্প গ্রুপটি। প্রতিষ্ঠানটি খাদ্যপণ্যের প্রথম পণ্য হিসেবে বাজারে এনেছে রিদিশা ব্র্যান্ডের বিস্কুট।

রাজধানীর একটি হোটেলে শনিবার রিদিশা বিস্কুটের বিপণন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন গাজীপুর-৩ আসনের সাংসদ রহমত আলী। স্বাগত বক্তব্য দেন কোহিনূর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেজাউল করিম। আরও বক্তব্য দেন রিদিশা ফুড অ্যান্ড বেভারেজেসের করপোরেট অ্যাফেয়ার্স পরিচালক আবুল খায়ের এবং বিপণন বিভাগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এ কে এম জাবেদ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বিস্কুট উৎপাদনের জন্য গাজীপুরের শ্রীপুরের ধানুয়ায় রিদিশা ফুড অ্যান্ড বেভারেজের কারখানা তৈরি করা হয়েছে। এখানে স্বয়ংক্রিয় মেশিনে সর্বোচ্চ মানের বিভিন্ন ধরনের বিস্কুট উৎপাদন শুরু হয়েছে। কারখানাটি স্থাপনে প্রাথমিকভাবে ১৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। এ বিনিয়োগ পর্যায়ক্রমে বাড়ানো হবে। বিস্কুটের বিপণনের জন্য সারা দেশে ৩০০ পরিবেশক নিয়োগ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এ ছাড়া একটি ভিডিওচিত্রের মাধ্যমে রিদিশা গ্রুপের ব্যবসায়িক কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়।

রেজাউল করিম বলেন, ২০০৩ সালে বস্ত্র খাতে যাত্রা শুরু করে রিদিশা গ্রুপ। এই গ্রুপের সাতটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে নতুন করে যোগ হলো রিদিশা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ। দেশে প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। সেই চাহিদা পূরণে ও সর্বোচ্চ মানের খাদ্যপণ্য মানুষের হাতে তুলে দিতেই রিদিশা ফুডের যাত্রা শুরু হলো।

আবুল খায়ের বলেন, ‘দেশে বর্তমানে স্বয়ংক্রিয় মেশিনে উৎপাদিত বিস্কুটের চার হাজার কোটি টাকার বাজার রয়েছে। এই বাজারের ৩ শতাংশ আগামী এক বছরের মধ্যে অর্জন করতে চায় রিদিশা ফুড। এ লক্ষ্য অর্জনে পরিবেশকদের ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। বড় শিল্পগোষ্ঠী হিসেবে আপনারা কোহিনূরের প্রতি যেমন আস্থা রেখেছেন, রিদিশার প্রতিও আপনারা আস্থা রাখবেন আশা করছি। ছয় মাস যদি আপনারা ধৈর্য ধরেন, তাহলে আপনাদের হতাশ হতে হবে না।’