লক্ষ্মীপুরে শতাধিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ন

লক্ষ্মীপুরে শতাধিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ন

শেয়ার করুন

Lakshmipur School Pic (01) 05.05.2015মো.কাউছার, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুরে শতাধিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ন ঘোষনা করা হয়েছে। এসব বিদ্যালয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শ্রেনীকক্ষে লেখাপড়া করেছে শিক্ষার্থীরা। জ্বরাজীর্না ভবনের দেয়াল ও দেয়ালের প্লাস্টার ধসে প্রায় ঘটেছে দূর্ঘটনা।

লক্ষ্মীপুর সদর, রায়পুর,রামগঞ্জ,রামগতি ও কমলনগরসহ ৫টি উপজেলায় ৭শত ৩১টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রযেছে। জেলায় প্রায় শতাধিক বিদ্যালয় ঝূঁকিপূর্ন হিসেবে ঘোষনা করেছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। এর মধ্যে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার পশ্চিম চররমনী মোহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি জ্বরাজীর্ন ও ঝুঁকিপূর্ন। এ বিদ্যালয়টিতে ১ম শ্রেনী থেকে ৮ম শ্রেনী পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ছাত্র/ছাত্রী রয়েছে। প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শ্রেনীকক্ষে লেখাপড়া করেছে শিক্ষার্থীরা। প্রায়ই ভবনের দেয়াল ও দেয়ালের প্লাস্টার ধসে আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। এছাড়া বিদ্যালয়ের বেশিরভাগ পিলারে দেখা দিয়েছে ভাঙ্গন। ভেঙ্গে গেছে কয়েকটি পিলার।
শ্রেনীকক্ষে শিক্ষার্থীদেরকে ঝুকি নিয়ে পাঠদান দিচ্ছেন শিক্ষকরা। গত কয়েকদিন আগে দেয়ালের প্লাস্টার ধসে ৫ম শ্রেনীর কয়েকজন ছাত্র আহত হয়। ঝুঁকিপূর্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবস্থায় একই চিত্র বলে জানিয়েছেন শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।
Lakshmipur School Pic (08) 05.05.2015
শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, বারবার জেলা শিক্ষা অফিসে জানালো হলেও এর কোন ব্যবস্থা নেয়া হ্েচ্ছনা। ইতিমধ্যে বিদ্যালয়ের দেয়াল ধসে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। প্রতিদিন জীবনের ঝুকি নিয়ে শ্রেনীকক্ষে যেতে হচ্ছে। সব সময়ে উদ্বেগ উৎকন্ঠা ও আতংকের মধ্যে থাকি। এসব ঝুকির্পূন বিদ্যালয় দ্রুত মেরামত না করলে যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা রয়েছে। দ্রুত ঝুঁকিপূর্ন বিদ্যালয়গুলো মেরামত বা নতুন ভবন তৈরি করার দাবী জানান তারা।
Lakshmipur School Pic (04) 05.05.2015
জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুজাপর মোহাম্মদ সালেহা জানান,যেসব বিদ্যালয়ে পাঠদান দেয়া যাচ্ছেনা,সেগুলো চিহিৃত করার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ন বিদ্যালয় নতুন ভবন করার জন্য শিক্ষামন্ত্রনালয়ে তালিকা পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন ফেলে ভবন র্নিমানের কাজ শুরু হবে।