‘ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে ড্যাফোডিলের ভূমিকা প্রসংশনীয়’

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে ড্যাফোডিলের ভূমিকা প্রসংশনীয়’

শেয়ার করুন
7F9A9701
ছবি: পাবলিক রিলেশান অফিস, ডিআইইউ।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রসংশনীয় ভূমিকা পালন করছে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, এমপি। শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি করা বর্তমান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য এবং আদর্শ জাতি গঠনে নৈতিক শিক্ষা খুবই জরুরী যা অর্জনে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকা প্রশংসনীয়।

শিক্ষামন্ত্রী বুধবার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ৭ম সমাবর্তনে ইউনিভার্সিটির চ্যান্সেলর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতিত্বকালে এ কথা বলেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধ ও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে অর্জিত জ্ঞান কাজে লাগিয়ে গবেষণার মাধ্যমে নতুন তথ্য ও প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবে যা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সহায়তা করবে।

ছবি: পাবলিক রিলেশান অফিস, ডিআইইউ।
ছবি: পাবলিক রিলেশান অফিস, ডিআইইউ।

বিশ্ববিদ্যালয়টির ৭ম সমাবর্তনে যোগ দিয়ে তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম প্রকল্প কৃষিভিত্তিক প্রসেসড ফুডসের জন্য দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতেও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অবদান রাখছে। এসময় তিনি বাংলাদেশ এগ্রো প্রসেসর এসোসিয়েশনের সাথে এমওইউ স্বাক্ষর করায় ড্যাফোডিল কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি তাদের শিক্ষকদের গবেষণায় অত্যন্ত গুরুত্বারোপ করে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি চুক্তির মাধ্যমে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রামে যেতে পারছেন। শিক্ষার মানোন্নয়নের ক্ষেত্রে এরকম পদক্ষেপ সত্যিই আশাব্যঞ্জক।

সমাবর্তনে ৩৪৯৮ জন নবীন গ্র্যাজুয়েট শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে সনদ গ্রহণ করেন। এবারের সমাবর্তনে পঁচ জন গ্র্যাজুয়েটকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এরা হলেন পাবলিক হেলথ ডিপার্টমেন্টের সাদিয়া আফরোজ, পঙ্কজ কুমার সাহা, তামাতুন ইসলাম তানহা, ইটিই বিভাগের মোহাম্মদ জাকারিয়া ভূইয়া, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের ইপসা আনিকা ও সিএসই ডিপার্টমেন্টের মো. রিয়াজুর রহমান।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনকারী ১৫ জ্ন গ্র্যাজুয়েটকে স্বর্ণপদক প্রদান করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে মন্ত্রী সমাবর্তন শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন। ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ডিআইইউ ১৭ টি বিভাগে ২৫০০০ শিক্ষার্থীকে গ্র্যাজুয়েশন প্রদান করে।

ঢাকার আশুলিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা মিলনায়তনে আয়োজিত সমাবর্তনে আরও বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, সমাবর্তন বক্তা ইন্টারন্যাশনাল এসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটি প্রেসিডেন্টস এর সভাপতি এবং জর্জিয়ার ককেসাস ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট ড. কাখা শিঙ্গেলিয়া, ডিআইইউ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম এবং ইউনিভার্সিটির ট্রাষ্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান ও বিভিন্ন অনুষদের ডীনগন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সমাবর্তন শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন। ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ডিআইইউ ১৭ টি বিভাগে ২৫০০০ শিক্ষার্থীকে গ্র্যাজুয়েশন প্রদান করে।