জাবির রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে আওয়ামী পন্থিদের জয়

জাবির রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে আওয়ামী পন্থিদের জয়

শেয়ার করুন

546
সাভার প্রতিনিধি :

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। বিপুল উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দিয়ে ১১৯ জন প্রার্থীর মধ্যে যোগ্য ২৫ জনকে সিনেটর হিসেবে বেঁচে নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা। আওয়ামীপন্থী অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবীরের নেতৃত্বাধীন প্যানেল থেকে ১৮ জন, বিএনপিপন্থী প্যানেল থেকে ৬ জন আর আওয়ামীপন্থী আরেকাংশের প্যানেল থেকে ১ জন জয়লাভ করেছে।
আজ রবিবার সকালে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক এ ফলাফল ঘোষণা করেন।

ফলাফলে অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবীরের নেতৃত্বাধীন আওয়ামীপন্থী একাংশের প্যানেল ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল জোট’ মনোনীত ২৫ জন প্রার্থী মধ্যে ১৮ জন জয় যুক্ত হয়েছে। তারা হলেন- খন্দকার মহিদ উদ্দিন ২১শ ৪৪ ভোট পেয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন। মো. কায়কোবাদ হোসেন ১৮৭৩ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে।  অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবীর ১৬৮৫ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে। অধ্যাপক মো. আলমগীর কবীর ১৪৫৭ ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থানে।  মোহাম্মদ সোহেল পারভেজ ১৪৩৪ ভোট পেয়ে ৫ম স্থানে।  আশীষ কুমার মজুমদার ১৪৩২ ভোট পেয়ে ষষ্ঠ স্থানে। শামীমা সুলতানা ১৪১১ ভোট পেয়ে সপ্তম স্থানে। কৃষ্ণা গায়েন ১৪০২ ভোট পেয়ে অষ্টম স্থানে। অধ্যাপক পৃথিলা নাজনীন নীলিমা ১৩৯৬ ভোট পেয়ে নবম স্থানে।
এছাড়া এ প্যানেল থেকে মহাব্বত হোসেন খান ১২৩৮ ভোট পেয়ে ১২তম। শেখ মনোয়ার হোসেন ১১৯৪ ভোট পেয়ে ১৪তম। মো.  মোতাহার হোসেন ১১৩১ ভোট পেয়ে ১৬তম। আবুল  কালাম আজাদ ১১১৫ভোট পেয়ে ১৭ তম। মো. মেহদী জামিল ১০৮২ ভোট পেয়ে ১৮ তম। ইবায়দুল্লাহ তালুকদার ১০৭৭ ভোট পেয়ে ১৯তম। ইন্দু প্রভা দাস ৯৯৪ ভোট পেয়ে ২৩তম। মাসুদুর রহমান ৯৮০ ভোট পেয়ে ২৪তম। আনোয়ার হোসেন মৃধা ৯৭৫ ভোট পেয়ে ২৫তম।

অন্যদিকে বিএনপিপন্থী ‘স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, বহুদলীয় গণতন্ত্র ও বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী’ প্যানেলের ভরাডুবি হয়েছে। নির্বাচনে ২৫ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ৬ জন জয়লাভ করেছে। যারা হলেন- অধ্যাপক মো. কামরুল  আহসান ১৩৪২ ভোট পেয়ে দশম স্থান অধিকার করেছেন। এছাড়া ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান ১৩০৭ ভোট পেয়ে ১১তম। শামীমা সুলতানা ১২০৭ ভোট পেয়ে ১৩তম। শামছুল আলম ১১৮৪ ভোট পেয়ে ১৫তম। সাবিনা ইয়াসমিন ১০৩০ ভোট পেয়ে ২০তম। অধ্যাপক মো. নজরুল ইসলাম ১০১০ ভোট পেয়ে ২২তম।
এদিকে আওয়ামীপন্থী আরেকাংশের প্যানেল ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও প্রগতিশীল গ্রাজুয়েটস মঞ্চের’ ২৫জন প্রার্থী মধ্যে মাত্র ১জন জয়লাভ করেছে। তিনি হলেন- অধ্যাপক মো. আব্দুল মান্নান চৌধুরী ১০২৭ ভোট পেয়ে ২১তম স্থান অধিকার করেছেন।

নির্বাচনের সার্বিক বিষয়ে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক বলেন, ‘শাস্তিপূর্ণ ভাবে আমরা নির্বাচন শেষ করেছি। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। নির্বাচন নিয়ে সকল প্রার্থীরা সন্তুষ্ট।’
এর আগে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই গতকাল সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট দেয় ভোটাররা। পরে বিকাল সাড়ে ৫টা থেকে ভোট গণনা শুরু হয় যা শেষ হয় আজ ভোর সাড়ে ৪টার দিকে। তারপর সকালে এ ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

নির্বাচনে ৪৩৭৩ গ্র্যাজুয়েট ভোটারদের মধ্যে ৩৬৩৫ গ্র্যাজুয়েট ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। যা মোট ভোটারের ৮৩ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ-১৯৭৩ এর ১৯ (১) (আই) ধারা অনুযায়ী সিনেটে ২৫ জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন ৩ বছর পর পর হওয়ার কথা। কিন্তু জাবিতে ১৯বছর পর এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। এখন সকলের প্রত্যাশা এখন থেকে নিয়মিত হবে এ নির্বাচন।