মানব পাচারকারী চক্রের অর্থের যোগানদাতা এক সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১১

মানব পাচারকারী চক্রের অর্থের যোগানদাতা এক সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১১

শেয়ার করুন

তেততত।। কুমিল্লা প্রতিনিধি ।।

মানব পাচারকারী চক্রের অর্থের যোগানদাতা লিটন নামের এক সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১১। শনিবার (৭ আগস্ট) সকালে চাঁদপুর জেলার দক্ষিণ মতলব থেকে আটক করা হয় তাকে।

জানা যায়, ঢাকার আশুলিয়া থানার গোহাইল বাড়ি এলাকার বাসিন্দা জনি। ভাগ্য বদলের আশায় প্রায় দেড় বছর আগে পারিজমান ওমানে। সেখানে পরিচয় হয় বাংলাদেশী আরেক ওমান প্রবাসী মো. তাহের মিয়া ওরফে তুষারের সঙ্গে। পরে তুষারের প্রলোভনে আরও ভালো থাকার আশায় তুরস্কে পারি জমায় জনি। সেখানে যাওয়ার পর, অজ্ঞাত ব্যাক্তিরা জনিকে আটকে রেখে শুরু করে শারীরিক নির্যাতন, পরিবারের কাছে দাবী করেন নগদ ৭লাখ টাকা। এদিকে জনিকে মুক্ত করতে তার পরিবার প্রথমে বিকাশের মাধ্যমে ২৫হাজার টাকা ও ব্যাংকের মাধ্যমে আরও ৬০হাজার টাকা পরিশোধ করে। কিন্তু অজ্ঞাতরা বকেয়া টাকার জন্য জনিকে আবারও নির্যাতন শুরু করে এবং জনির পরিবারকে চাপ সৃষ্টি করে। দিশেহারা জনির বোন পারুল বেগম খোঁজ নিয়ে জানতে পারে যে একাউন্টের মাধ্যমে ৬০হাজার টাকা পরিশোধ করা হয়েছে, সে একাউন্টি চাঁদপুরে।

উপায় না পেয়ে র‌্যাবের কাছে লিখিত অভিযোগ জানায়। র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কুমিল্লা লিখিত অভিযোগ পেয়ে ৬০হাজার টাকা পরিশোধ করা ব্যাংক একাউন্টের সন্ধান করে জানতে পারে একাউন্টের মালিক ছুটিতে থাকা আরেক ওমান প্রবাসী মো. লিটন। পরে লিটন নামের ওই ব্যাক্তিকে আটক করে র‌্যাব। আটককৃত লিটন চাঁদপুর জেলার দক্ষিণ মতলবের বেলুতি গ্রামের আজমত উল্লাহ’র ছেলে। সে ওমানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কাজ করে এবং মানবপাচারকারি চক্রের টাকা আদান-প্রদানের সাথে জড়িত বলে র‌্যাবের কাছে স্বীকার করে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কুমিল্লা, কোম্পানী অধিনায়ক মেজর সাকিব হোসেন জানান, আটককৃত লিটনের দেওয়া তথ্যমতে ভিকটিম জনি ওমানে থাকার সময় মো. তাহের মিয়া ওরফে তুষার নামের এক দালালের সঙ্গে পরিচয় হয়, পরে তুষার ভিকটিম লিটনকে প্রলোভন দেখিয়ে প্রথমে ইরানে পাঠায় এবং সেখানে সুমন নামের এক দালাল ভিকটিম জনিকে গ্রহণ করে। এরপর ইরান থেকে দালাল সুমন তুরস্কে পাঠায় জনিকে। সেখানে আরেক দালাল সাইফুল ও রানা জনিকে গ্রহণ করে। এরপর থেকে তারা লিটনের উপর টাকার জন্য শারীরিক নির্যাতনের পাশাপশি তার পরিবারের কাছে নগদ ৭লাখ টাকা দাবি করে আসছিলো। এর মধ্যে বিকাশে ২৫হাজার ও ব্যাংকের মাধ্যমে আরও ৬০হাজার টাকা পরিশোধ করে লিটনের পরিবার। পরে লিখিত অভিযোগ পেয়ে অভিযানে নামে র‌্যাব। আটক করা হয় অর্থ আদান-প্রদানের সঙ্গে জড়িত চাঁদপুর জেলার লিটনকে। এছাড়া দালাল সাইফুল ও রানা ও তুষারকে গ্রেফতার এবং ভিকটিম জনিকে উদ্ধার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।