সৈয়দ শামসুল হকের প্রথম মৃত্যুুবার্ষিকী

সৈয়দ শামসুল হকের প্রথম মৃত্যুুবার্ষিকী

শেয়ার করুন

_91049920_syedshamsulhaque
নিজস্ব প্রতিবেদক :

একটি বছর পার হলো, আমাদের ছেড়ে গিয়েছেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। গতবছর এই দিনে রাজধানীর একটি হাসপাতালে, মৃত্যু কেড়ে নেয় তাকে। মরণ ব্যাধিতে হার না মানা এই লেখক সৃষ্টিশীল ছিলেন শয্যাশায়ী হয়েও। আর তাই হয়তো, সৈয়দ হক আজও বেচে আছেন তার সাবলীল তবু অসাধারণ সাহিত্য কর্মে।

সাহিত্যের সকল শাখায় সাবলীল পাদচারণার জন্য তাঁকে বলা হয় সব্যসাচী লেখক। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। রেখে যান, বাঙ্গালীর আজীবন গর্ব করার মতো অসাধারণ সব গল্প-উপন্যাস, নাটক, চলচ্চিত্র, গান এবং অবশ্যই কালজয়ী কবিতা।

বাংলা সাহিত্যের পাঠক তাঁর কাছ থেকে পেয়েছে ৪০টির বেশি উপন্যাস। প্রেম-বিরহ, সমাজ-সংসার আর মুক্তিযুদ্ধ ছিলো তাঁর প্রিয় বিষয়। তার নাটকের সংলাপ স্লোগান হয়েছে রাজপথে। তার গানের লাইন, চিরঞ্জীব উপমা।

সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পাবার রেকর্ড এখনও সৈয়দ শামসুল হকের। পেয়েছেন জাতীয়  চলচ্চিত্র পুরস্কার, একুশে পদকসহ অসংখ্য সাহিত্য পুরস্কার ও সম্মাননা। প্রায় ৬২ বছর ব্যাপী লেখকজীবনের প্রতিটি মুহূর্তে ছিলেন সৃষ্টিশীল ।

মৃত্যুর পরেও বাঙালির মনে ‘বাঙালি’ হয়ে বেঁচে থাকতে চেয়েছিলেন সৈয়দ হক। আছেনও তাই। তাকে হারিয়ে তার লেখাতেই খুঁজে ফিরতে হয় সান্ত্বনা।

তাঁর নশ্বর দেহ এখন অতীত, কিন্তু বিষয় বৈচিত্র্যে, ভাষার কারুকার্য আর সৃষ্টির বিশালতায়—বাংলা ভাষার সমান আয়ু নিয়েই বাঁচবেন সৈয়দ শামসুল হক।

বাংলা ভাষার অসামান্য এই সাহিত্য স্রষ্টার প্রতি এটিএন টাইমসের শ্রদ্ধা।