নজরুলকে অবহেলা জাতীয় পাঠ্যক্রমেও

নজরুলকে অবহেলা জাতীয় পাঠ্যক্রমেও

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

শুধু কবিতা নয়, জাতীয় কবি নজরুলের গল্প, উপন্যাস ও নাটকগুলো শিক্ষাক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা জরুরী বলে মনে করেন নজরুল গবেষকরা। তারা বলছেন, দেশে বর্তমান প্রেক্ষাপটে, তরুণ সমাজকে পথ চেনাতে আলোর দিশা রেখে গিয়েছেন কাজী নজরুল ইসলাম।

নজরুলের এই দৃপ্ত শব্দগুলো বাঙ্গালীকে উজ্জীবিত করেছে সেই ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা সংগ্রাম পর্যন্ত। এমনকি স্বাধীনতার পরেও নানা আন্দোলন সংগ্রামে নজরুলের দ্রোহ, অসাম্প্রদায়িক আর সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী চেতনা প্রেরণা জুগিয়েছে বাংলা ভাষাভাষী মানুষকে।

তাই বলে কি কাজী নজরুল ইসলাম শুধুই বিদ্রোহী কবি? তাতো নয়। নজরুলের প্রেম কিংবা অসাম্প্রদায়িক চেতনা যুগে যুগে উজ্জীবিত করেছে বাংলা ভাষাভাষী মানুষকে। তবে তার কতটুকু উঠে এসেছে বাংলাদেশের জাতীয় পাঠ্যক্রমে।

১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু কবি কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশে নিয়ে আসার আগে বিদ্রোহী এই কবির প্রায় পুরো জীবনই কেটেছে অবহেলায়, অনাদরে। আর এখন সারা বিশ্ব যখন বিপর্যস্ত সন্ত্রাসবাদের করাল থাবায়, যখন পুরো বাঙ্গালী জাতি চিন্তিত তার তরুণ সমাজ নিয়ে, তখন কেন নিষ্প্রাণ এই কবি। সন্ত্রাসবাদ বিরোধী এই সংগ্রামে আমরা কেন ব্যর্থ নজরুলের চেতনা কাজে লাগাতে।

নজরুলকে অবহেলা, তাকে আবিষ্কার করতে না পারা বাঙ্গালীর জন্য নতুন নয়। এমনকি জাতীয় পাঠক্রমেও বিকৃত করা হয়েছিলো তার কবিতা। নজরুল গবেষকরা বলছেন, যাকে জীবদ্দশায় প্রাপ্য সম্মান দিতে পারেনি বাঙ্গালী জাতি, অন্তত তার মৃত্যুর পর দেশের স্বার্থে হলেও তার রচনার প্রাপ্য সম্মান দেয়া হোক।