ধর্ম-বর্ণ-সম্প্রদায়ের উর্ধ্বে উঠে মানবমঙ্গলের গান গেয়েছেন নজরুল

ধর্ম-বর্ণ-সম্প্রদায়ের উর্ধ্বে উঠে মানবমঙ্গলের গান গেয়েছেন নজরুল

শেয়ার করুন

Nazrulনিজস্ব প্রতিবেদক :

কবি কাজী নজরুল ইসলাম ধর্ম-বর্ণ-সম্প্রদায়ের উর্ধ্বে উঠে মানবমঙ্গলের গান গেয়েছেন। চেয়েছেন নিপীড়িত মানুষের প্রগতি। পিছিয়ে পড়া মানুষকে জাগাতে চেয়েছেন।  চেয়েছেন ইংরেজ শাসকদের হটিয়ে, উপমহাদেশের মানুষকে স্বাধীনতার পতাকা তলে সমবেত করতে। সকল সংগ্রামে, তিনি প্রতিনিধিত্ব করেছেন অত্যাচারিত ও দুর্বলের, তারুন্যের উল্লাসে তিনি গেয়েছেন মানুষের জয়গান। কবির ৪১ তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এটিএন টাইমসের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

সাম্যের কবি নজরুল লিখেছিলেন, হিন্দু-মুসলিম- বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সকলেই অভিন্ন এক মানব ধর্মকে হৃদয়ে ধারণ করে আছে। ধর্মের বাহ্যিক রূপটা একটা খোলস মাত্র। ধর্মের অন্তর্নিহিত সত্যকে ভুলে গিয়ে হিন্দু-মুসলমান বাহ্যিক আচার-আচরণকে অহেতুক গুরুত্ব দিয়ে থাকে। তিনি লিখেছেন, সব ধর্মের ভিত্তি, চিরন্তন সত্যের পর। যে সত্য সৃষ্টির আদিতে ছিল, এখনো রয়েছে এবং অনন্তে থাকবে। আমাকে যে ধর্মে ইচ্ছা ফেলতে পারো তোমরা। আমি হিন্দু, আমি মুসলমান, আমি খ্রিস্টান, আমি বৌদ্ধ, আমিই ব্রাহ্ম।

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ভাবনায় স্বদেশচেতনার পরিচয় দিয়েছেন নজরুল। যেমন, ‘ মোরা এক বৃন্তে দুটি কুসুম , হিন্দু-মুসলমান , মুসলিম তার নয়নমণি, হিন্দু তাহার প্রাণ। আবার লিখেছেন, হিন্দু না ওরা মুসলিম, ওই জিজ্ঞাসে কোন জন? কান্ডরী বল ডুবিছে মানুষ, সন্তান মোর মা’র।

নজরুল ইসলামের কাছে সব মানুষ যেমন পবিত্র ছিল, তেমনি সব ধর্মও ছিল সমান শ্রদ্ধেয়। কোনো ধর্মকে তিনি এতটুকু খাটো করে দেখেননি। সব মানুষই ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ। সকল মানুষের মিলিত শক্তিই ছিল তাঁর কাম্য। তাই গানে, কাব্যে, সংগীতে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছেন অভেদ ও সুন্দর এক সাম্যকে।