আবৃত্তির মৌসুমী হাসান: একজন কবি এবং সফল মানুষ

আবৃত্তির মৌসুমী হাসান: একজন কবি এবং সফল মানুষ

শেয়ার করুন

27157751_972992586171782_1185643194_nনিজস্ব প্রতিবেদক :

মৌসুমী হাসান। বাংলাদেশ সরকারের একজন কর্মকর্তা। তবে শুধু এই একটি পরিচয়ে তিনি থেমে থাকেননি, পাশাপাশি তিনি একজন কবি, সংবাদ উপস্থাপিকা, নির্বাহী সদস্য নিউজ প্রেজেন্টার্স সোসাইটি অব বাংলাদেশ, আবৃত্তিকার, অনুষ্ঠান ঘোষক, অফিসার্স ক্লাবের সদস্য, লেডিস ক্লাবের সদস্য, ক্রীড়াবিদ। বহু গুণের অধিকারী এই কর্মকর্তার ক্যারিয়ারে সবশেষে যোগ হলো একটি বিশেষ বিশেষণ ‘সংগঠক’। গত ২০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত অফিসার্স ক্লাব, ঢাকার নির্বাহী কমিটির নির্বাচনে সদস্য নির্বাচিত হলেন তিনি।

তিনি প্রথমবার এই নির্বাচনে অংশ নিয়েই সফলতা লাভ করেছেন। এতে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছেন তিনজন। এরা হলেন- পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কেএম মোজাম্মেল হক। সাবেক যুগ্ম সচিব এমএ রাজেক ও সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো. আনছার আলী খান। সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান।

সরকারের একজন কর্মকর্তা হয়ে এক সাথে এত কাজ কিভাবে সম্পাদন করেন, এমন প্রশ্নের জবাবে মৌসুমী হাসান জানান, একাগ্রতা আর সদিচ্ছা থাকলে সবকিছুই সঠিকভাবে সম্পাদন করা সম্ভব।

মৌসুমী হাসানের জন্ম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মভূমি গোপালগঞ্জে। মা- মোছাঃ কোহীনুর বেগম, বাবা- বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম হেমায়েত উদ্দিনের একমাত্র কন্যা সন্তান তিনি। দুই ভাইবোনের মধ্যে তিনি বড়। স্বামী বাংলাদেশ সরকারের একজন অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মাহবুব হাসান। একমাত্র সন্তান সৈয়দ ইরতিজা এম হাসান।27153374_972987649505609_80050838_nহঠাৎ কেন নির্বাচনে এলেন এমন প্রশ্নের জবাবে মৌসুমী হাসান বলেন, আমার স্বামী সরকারী কর্মকর্তা, আমি নিজেও সরকারের কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আমরা দুজনই অফিসার্স ক্লাবের সদস্য। আর অফিসার্স ক্লাবে বিভিন্ন কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে পড়ে ক্লাবে আসা-যাওয়া নিয়মিত। তিনি ছোটবেলা থেকেই পড়ালেখার পাশাপাশি সামাজিক, সাংস্কৃতিক, খেলাধুলাসহ বিভিন্ন বিনোদনধর্মী ও সেবামূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েছেন। যার চিত্র অফিসার্স ক্লাবেও দেখা যায়। তাই যখন তাকে কয়েকজন শুভাকাঙ্ক্ষী নির্বাচনে অংশগ্রহনের পরামর্শ দিলেন তখন তিনি সাড়া দিলেন। তাঁর মতে অফির্সাস ক্লাবে মহিলাদের মূল্যায়নটা সমাজের যেকোনো জায়গার চেয়ে বেশী। সবার দোয়া, ভালবাসা, আর শ্রমের ফলে তিনি প্রথমবার অংশ নিয়েই নির্বাচিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, অনেক যোগ্য মানুষ নির্বাচনে অংশ নিয়েছেনে। এত এত যোগ্যদের মাঝে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হওয়ায় তিনি আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেন। তার সকল শুভাকাঙ্ক্ষী যারা তাকে সঠিক পরামর্শ দিয়েছেন, সহযোগিতা করেছেন এবং ভোট দিয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, ‘সবার ভালবাসায় আমি আজ এখানে।’

মৌসুমি হাসান সরকারের একজন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও তাঁর খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ বা অংশ নেয়াটা কমে যায়নি। তিনি দাবা, সাঁতারসহ খেলাধুলার বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ নিয়ে পুরস্কৃত হয়েছেন।

মৌসুমী হাসান বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বেতারে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ের উপর টকশোসহ বিভিন্ন প্রোগ্রাম উপস্থাপন করে থাকেন।তিনি মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন অনুষ্ঠানের ঘোষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এত এত পরিচয়ের মধ্যে ভালবাসেন একজন আবৃত্তি শিল্পী এবং কবি হিসেবে নিজেকে দেখতে। কবিতা তাঁর আত্মার সাথে মিশে আছে। তিনি বেতার ও টেলিভিশনে নিয়মিত আবৃত্তি করে থাকেন। তার ‘বয়:সন্ধিকালে এবং ‘ইচ্ছে মেয়ে’নামে কবিতার দুটি এলবাম রয়েছে। কাব্য গ্রন্থ ‘ডানায় রোদের আলতা মাখা’ প্রকাশিত হবার অপেক্ষায়।

একজন সরকারী কর্মকর্তা হয়ে কেন কবিতার দিকে ঝোঁক? এ ব্যাপারে মৌসুমী হাসান বলেন, আমি কবিতাকে ভালবাসি।কবিতা একজন মানুষকে ব্যক্তিত্ববান করে তোলে। কবিতা মানুষকে গুছিয়ে চিন্তা করতে, সুন্দর করে কথা বলতে ও সুন্দর ব্যবহার শেখায়। মানুষকে বিনয়ী করে, মমত্ববোধ ও ভালবাসা শেখায়। মানুষের জন্য কিছু করতে শেখায়। কবিতা মানুষকে মানবিক হতে শেখায়। কবিতা মন থেকে সহিংসতা দুর করতে শেখায়।

তিনি বলেন, উৎসাহ ও প্রণোদনার অভাবে সমাজে এখনো আবৃত্তির মূল্যায়নটা সেভাবে হয়না। আবৃত্তি নিয়ে খুব চিন্তা ভাবনার জায়গা দেখা যায়না। কবিতা ও আবৃত্তির স্বীকৃতি স্বরূপ কোন অ্যাওয়ার্ড এর ব্যবস্থা হয় না। আবৃত্তির মূল্যায়নটা আমাদের সমাজে এখনো কম। এছাড়া তিনি আবৃত্তি ও কবিতা নিয়ে তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানান।

তিনি বলেন, কবিতা ও তার আবৃত্তির জায়গাটাকে শিল্পের পর্যায় নিয়ে যেতে তিনি কাজ করছেন। অবসর সময় তিনি কবিতা নিয়ে ভাবেন। কিভাবে শ্রোতা তৈরী করা যায় বা আবৃত্তির প্রতি সাধারণ মানুষকে আগ্রহী করে তোলা যায় সে বিষয়ে তিনি কাজ করছেন। আর কবিতা নিয়ে তাঁর দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার বাস্তবায়ন শুরু হবে এ বছর থেকেই। অফিসে তাঁর কাজের জায়গাটাও অনেক গুরুত্বপূর্ন। তাই যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নতুন দায়িত্ব যেন সঠিকভাবে পালন করতে পারেন সে জন্য সবার সহযোগিতা এবং দোয়া কামনা করেন তিনি।

আগামী ০৩/০৩/২০১৮ ইং তারিখ এই গুনী শিল্পীর জন্মদিন উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে তাঁর একক আবৃত্তি সন্ধ্যা। উল্লেখ্য যে উক্ত অনুষ্ঠানে গুনী আবৃত্তিকার জয়ন্ত চট্টপাধ্যায়কে সংবর্ধনা দেয়া হবে।