আগের যে কোনো বছরের তুলনায় জমজমাট মেলার আশা করছেন প্রকাশকরা

আগের যে কোনো বছরের তুলনায় জমজমাট মেলার আশা করছেন প্রকাশকরা

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এবারের বইমেলায় বেড়েছে স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা। পরিবেশও রাখা হয়েছে আগের তুলনায় খোলামেলা। প্রকাশকরা তাই আশা করছেন আগের যে কোনো বছরের তুলনায় জমজমাট মেলার।

অমর একুশে বইমেলার জন্য অনেকেই অপেক্ষা করে থাকেন বছরের ১১টা মাস। তাই মেলার প্রথম দিনেও অভাব হয়না মানুষের। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন ঘোষণা করে চলে যাবার পর বৃহস্পতিবার গোধূলীর ঠিক আগে সবার জন্য খুলে দেওয়া হয় মেলা প্রাঙ্গন। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই পাঠক দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে চারপাশ।

তখনও প্রস্তুত না প্রকাশকরা। কেউ শেষ মুহূর্তে বই গুছাচ্ছেন। কোথাও ঠুক ঠাক শব্দে চলছে স্টল সজ্জা।

বাংলা একাডেমির পুরোটা আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ৫ লাখ বর্গফুট এলাকা জুড়ে ২০১৮ সালের বইমেলা। দুই অংশে মোট ৪৫৫ টি প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে ৭১৯ টি ইউনিট এবং ২৪ টি প্রকাশনা পেয়েছে প্যাভিলিয়ন।

এত বড় খোলামেলা বইমেলা দেখার সৌভাগ্য পৃথিবীর অনেক মানুষেরই হয়না। সেই সৌভাগ্যের স্বাদ নিতে আসা ভিনদেশি কবি সাহিত্যিকদেরও দেখা মিলল মেলার প্রথম দিনের সন্ধ্যায়।

একমাসের এই বইমেলার শুরুর দিনটাই বলে দেয়, এই মেলা সত্যিকার অর্থেই বাঙালির প্রাণের মেলা। প্রকাশকরা দাবী করছেন, এই মেলাকে আন্তর্জাতিক মান দিতে এখন চেষ্টা করা দরকার রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর।